দেশের সংবাদ

কমলগঞ্জের সংবাদ পরিক্রমা

কমলগঞ্জের সংবাদ পরিক্রমা

চা বাগান থেকে মদের কারখানা তুলে দেয়া হবে
—– পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী মো: শাহাব উদ্দিন

পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ক মন্ত্রী মো. শাহাব উদ্দিন এমপি বলেছেন, চা শ্রমিকদের জীবনমান উন্নয়নে বর্তমান সরকার কাজ করে যাচ্ছে। চা শ্রমিকদের ন্যায্য দাবী দাওয়া বাস্তবায়নে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী অত্যন্ত আন্তরিক। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান চা শ্রমিকদের ভোটাধিকার দিয়েছিলেন। তাই চা শ্রমিকরা যেমন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে অত্যন্ত ভালবাসেন। তেমনি প্রধানমন্ত্রীও চা শ্রমিকদের ভালবাসেন। চা-শ্রমিকদের কথা মনযোগ সহকারে শোনেন। বর্তমান শেখ হাসিনা সরকারের আমলে চা শ্রমিকদের ভাগ্যের অনেক পরিবর্তন হয়েছে। তাদের জীবনমান উন্নয়ন হয়েছে। চা শ্রমিক সন্তানরা শিক্ষিত হচ্ছে। বিসিএস ক্যাডার হয়েছে। বিভিন্ন দপ্তরের তাদের চাকুরি হচ্ছে। চা শিল্পের প্রাণ হচ্ছে চা শ্রমিকরা। যে কোন অবস্থায় চোরাই পথে বাংলাদেশে চাপাতা আসা বন্ধ করতে তিনি স্থানীয় প্রশাসনকে নির্দেশ দেন। কাগজেপত্রে নাম থাকলে একটানা কেউ ১২ বছরে বসবাস করলে কেউ আপনাদের ভিটে থেকে উচ্ছেদ করতে পারবে না। কোন বাগান কৃর্তপক্ষ চা শ্রমিকদের উচ্ছেদ করতে চাইলে আপনারা আমাদের জানাবেন। আমরা সাথে সাথে ব্যবস্থা নিব। চা শ্রমিকদের ভূমি অধিকার প্রতিষ্ঠিত অধিকার। এটা নিশ্চিত করা হবে। আপনারা ভূমির মালিক হয়ে গেছেন। চা বাগান থেকে মদের কারখানা তুলে দেয়া হবে। চা শ্রমিকদের মজুরী অবশ্যই বৃদ্ধি করা হবে। শেখ হাসিনা চা শ্রমিকদের অত্যন্ত ভালবাসেন। চা শ্রমিকদের চুক্তি সম্পাদনে দীর্ঘসুত্রিতা যাতে না হয় সে ব্যাপারে আপনারা যতœবান হবেন। বিদ্যালয়বিহীন চা বাগানে বিদ্যালয় করা হবে। সব শ্রমিকদের বাসস্থানে বিদ্যুৎ সংযোগ দেয়া হবে। চা শ্রমিকদের সকল দাবী দাওয়া মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে তুলে ধরা হবে। তিনি রোববার (১২ জানুয়ারি) বিকাল ৪টায় মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার আলীনগর চা বাগান নাট মন্দির প্রাঙ্গনে অনুষ্ঠিত বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়নের বার্ষিক সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপরোক্ত কথাগুলো বলেন।

বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি মাখনলাল কর্মকারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ক মন্ত্রী মো. শাহাব উদ্দিন এমপি। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সাবেক চিফ হুইপ, অনুমিত হিসাব সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভাপতি উপাধ্যক্ষ ড. মো: আব্দুস শহীদ এমপি, কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের সাবেক সদস্য কমলগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান অধ্যাপক মো. রফিকুর রহমান, শ্রীমঙ্গল উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান রনধীর কুমার দেব, বাংলাদেশীয় চা সংসদের চেয়ারম্যান এম. শাহ আলম, আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থার ইনডিজিনাস এন্ড ট্রাইবাল পিপলস প্রজেক্টের ন্যাশনাল প্রজেক্ট কো-অর্ডিনেটর আলেক্সসিউস চিছাম, কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আশেকুল হক, শ্রম অধিদপ্তর শ্রীমঙ্গল এর উপ পরিচালক নাহিদুল ইসলাম। বার্ষিক সাধারণ সভায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক ও কমলগঞ্জ উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান  রামভজন কৈরী।
এ সময় উপস্থিত ছিলেন কমলগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আছলম ইকবাল মিলন, সাধারণ সম্পাদক এড. এএসএম আজাদুর রহমান, শ্রীমঙ্গল উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান প্রেমসাগর হাজরা, কমলগঞ্জ পৌরসভার মেয়র মো: জুয়েল আহমদ, কমলগঞ্জ থানার ওসি আরিফুর রহমান, মাধবপুর ইউপি চেয়ারম্যান পুস্প কুমার কানু, কমলগঞ্জ উপজেলা পরিষদের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান ছিদ্দেক আলী।

চা শ্রমিক নেতা সজল কৈরী ও মীনা রবিদাসের যৌথ পরিচালনায় সভায় অন্যানের মধ্যে বক্তব্য রাখেন চা শ্রমিক নেতা পংকজ কন্দ, বিজয় হাজরা, কমল চন্দ্র বুনার্জী প্রমুখ।

বার্ষিক সাধারণ সভায় বাংলাদেশের ৭টি ভ্যালীর সভাপতি-সম্পাদক, বাগান পঞ্চায়েত সভাপতি-সম্পাদক, শ্রমিক নেতৃবৃন্দ সহ কয়েক হাজার নারী-পুরুষ চা-শ্রমিক উপস্থিত ছিলেন।

সভায় বাগান মালিক ও শ্রমিকদের মধ্যে আরো সু-সম্পর্ক গড়ে ওঠার লক্ষ্যে চা শ্রমিকদের দীর্ঘদিনের দাবিসমূহ পূরণ ও তাদের অধিকার আদায়ের সংগ্রামে সকলের সহযোগিতা ও ঐক্যবদ্ধতা কামনা করেন সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক রামভজন কৈরী।

অনুষ্ঠানের শুরুতে জাতীয় পতাকা, জাতীয় সংগীত ও পায়রা উড়িয়ে অনুষ্ঠানে উদ্বোধন করেন পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী মো: শাহাব উদ্দিন এমপি। পরে ৭টি ভ্যালীর দলীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়।  অনুষ্ঠানে ২৩০টি চা বাগানের প্রায় ৬ হাজার চা শ্রমিকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
চা শ্রমিকদের বিভিন্ন দাবী দাওয়ার ব্যাপারে মন্ত্রী একমত পোষন করে আরো বলেন, ৩৬ টাকা থেকে বর্তমান মজুরি ১০২ টাকা করা হয়েছে। ১০২ টাকা যখন করা হয়েছে ৩০০ টাকা মজুরি করা হবে তা সময় সাপেক্ষ। এব্যাপারে প্রধানমন্ত্রীর সাথে আলাপ আলোচনা করা হবে।
বিকাল ৫টায় চা শ্রমিক ইউনিয়নের ২য় অধিবেশন বসে।

কমলগঞ্জে ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত

বাংলাদেশ ছাত্রলীগের গৌরব, ঐতিহ্য ও সংগ্রামের ৭২ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগ ও কলেজ ছাত্রলীগের উদ্যোগে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পন, র‌্যালী, কেক কাটা, আলোচনা সভা ও সাবেক ছাত্রলীগ নেতাদের সম্মাননা প্রদান করা হয়েছে। রেবাবার (১২ জানুয়ারি) দুপুর ১২ টায় কমলগঞ্জ উপজেলা চৌমুহনী হতে এক বিশাল র‌্যালী বের হয়। র‌্যালীটি উপজেলা সদরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিন শেষে ভানুগাছ বাজার চৌমুহনায় কেক কাটা হয়। পরে অনুষ্ঠিত হয় আলোচনা সভা।
কমলগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতি রাহাত ইমিতয়াজ রিপুল এর সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক সাকের আলী সজিব এর সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন মৌলভীবাজার জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি আমিরুল হোসেন চৌধুরী আমিন। প্রধান বক্তা ছিলেন মৌলভীবাজার জেলা ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক মাহবুব আলম। সম্মানিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কমলগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট এ এস এম আজাদুর রহমান, কমলগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগ সাবেক সহ-সভাপতি অধ্যক্ষ নুরুল ইসলাম, কমলগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগ সাবেক সভাপতি ধীরেন ধর, কমলগঞ্জ কলেজ ছাত্রলীগ সাবেক সভাপতি আনোয়ার পারভেজ আলাল, কমলগঞ্জ কলেজ ছাত্রলীগ সাবেক সাধারণ সম্পাদক শাহীন আহমেদ। অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন কমলগঞ্জ কলেজ ছাত্রলীগ সভাপতি আব্দুল হাকিম, সাধারন সম্পাদক হাসান আহমেদ, পতনউষার ইউনিয়ন ছাত্রলীগ সভাপতি আজিজুর রহমান পিপলু প্রমুখ।

কমলগঞ্জে অভাবের তাড়নায়  যুবতীর আত্মহত্যা

মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে মহিবা আক্তার নামে এক যুবতী বিষপানে আত্মহত্যা করেছে। পরিবারে অভাব অনটনের কারনে মেয়েটি আত্মহত্যা করেছে বলে এলাকাবাসীর ধারণা। গত শনিবার (১১ জানুয়ারী) সন্ধ্যা ৬টায় উপজেলার শমসেরনগর ইউনিয়নের গোবিন্দপুর গ্রামে এ ঘটনাটি ঘটে।

পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, উপজেলার গোবিন্দপুর গ্রামের জমসেদ মিয়া মেয়ে বড় মহিবা আক্তার (২০)। বাবা জমসেদ মিয়া ৫ মাস আগে অসুস্থ স্ত্রী, এক ছেলে ও দুই মেয়ে রেখে অন্যত্র চলে গেছেন। পরিবারে ভরণ পোষনের একমাত্র দায়িত্ব বর্তায় বড় মেয়ে মহিবার উপর। কলেজে যাওয়া বন্ধ করে দেয় মহিবা। অসুস্থ মায়ের চিকিৎসা খরচ যোগাতে হিমশিম খেতে হয়। গত শনিবার সন্ধ্যা ৬টায় পরিবারের সবার অজান্তে মহিবা বিষপান করে। এলাকাবাসীর সহযোগীতায় কমলগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স নিয়ে আসলে কর্তব্যরত ডাক্তার মৃত ঘোষনা করেন। পুলিশ লাশ উদ্ধার করে  ময়না তদন্ত শেষে রোববার বিকালে পরিবারের কাছে লাশ হস্তান্তর করে। এ ব্যাপারে কমলগঞ্জ থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।

শমশেরনগর ইউনিয়নের স্থানীয় ইউপি সদস্য মাসুক মিয়া বলেন, নিহত মহিবা আক্তার নামাজি ছিল। বাবা চলে যাওয়া ও মা অসুস্থ থাকায় পরিবারটি অতিকষ্টে দিনাতিপাত করতো। আমাদের ধারনা হয়তো পরিবারে অভাবের কারনে মেয়েটি আত্মহত্যা করেছে।

শমসেরনগর পুলিশ ফাঁড়ির এসআই আনজির আহমেদ ঘটনার সত্যতার স্বীকার করে বলেন, অভাবে কারনে মেয়েটি আত্মহত্যা করেছে বলে ধারনা করা হচ্ছে। ময়না তদন্ত শেষে লাশ পরিবারে কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।
cbna24-7th-anniversary
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.

three × four =