দেশের সংবাদ

কমলগঞ্জে বর্ণাঢ্য আয়োজনে খাসিদের বর্ষবিদায় উদযাপন

খাসিদের বর্ষবিদায়
সজীব দেবরায়, মৌলভীবাজার: খাসি বর্ষপুঞ্জি অনুযায়ী ১৫৬তম বর্ষকে বিদায় ও ১৫৭তম বর্ষকে স্বাগত জানিয়ে মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে চিরাচরিত ঐতিহ্যবাহী প্রথায় বর্ণাঢ্য আয়োজনে পালন হলো আদিবাসী খাসিদের বর্ষবিদায় ‘খাসি সেং কুটস্নেম’ উৎসব। শনিবার (২৩ নভেম্বর) উপজেলার মাগুরছড়া পুঞ্জির ফুটবল মাঠে সকাল ১০টা থেকে দিনব্যাপী খাসি সোস্যাল কাউন্সিল ও খাসি স্টুডেন্ট ইউনিয়নের উদ্যোগে ‘খাসি সেং কুটস্নেম’ উৎসব শুরু হয়।
 
রঙ বেরঙের কাগজ, কলাপতা ও বাঁশের খুঁটি দিয়ে আলোচনা সভার মঞ্চ তৈরী করা হয়। মাঠের চারপাশে বসেছে মেলা। খাসিদের বর্ষবিদায় মেলায় সাজানো হয়েছে খাসি সম্প্রদায়ের প্রয়োজনীয় সামগ্রী, খেলনা, খাদ্য সামগ্রী, পোশাক সামগ্রী ও মশলার সামগ্রী দিয়ে। বৃহত্তর সিলেট বিভাগের ৭০টি খাসিয়া পুঞ্জি থেকে আগত নারী-পুরষ, শিশু কিশোররা তাদের ঐতিহ্যবাহী পোশাক পরিধান করে এসে এসব স্টল থেকে প্রয়োজনীয় সামগ্রী কিনছেন।
 
বিকেলে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন মৌলভীবাজার জেলা প্রশাসক নাজিয়া শিরিন। এসময় উপস্থিত থেকে বক্তব্য দেন মৌলভীবাজার জেলার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মল্লিকা দে, সম্প্রতির বাংলাদেশের আহবায়ক নাট্যব্যক্তিত্ব পিযুষ বন্দোপাধ্যায়, বৃহত্তম আদিবাসী ফোরামের মহাসচিব ফিলা পতমি, মাগুর ছড়া খাসিয়া পুঞ্জির গ্রাম প্রধান (মান্ত্রী) জিডিশন প্রধান সুছিয়াং, বৃহত্তর সিলেট আদিবাসী ফোরামের চেয়ারপার্সন পিডিশন প্রধান সুছিয়াং।
 
khasia-girl
 
উৎসবের মূল আকর্ষণ ছিল ঐহিত্যবাহী খাসি পোশাক পরে মেয়েদের নাচ-গান, তৈল যুক্ত একটি বাঁশে উঠে উপরে রাখা মুঠোফোন গ্রহন, দুটি পুকুরে বড়শী দিয়ে মাছ শিকার, তীর ধনুক খেলা, গুলতি চালানো, র্যাফেল ড্র ও মেলা। প্রতিটি আয়োজনে বিজয়ীদের জন্য ছিল আকর্ষণীয় পুরষ্কার। ২০১২ সাল থেকে মাগুরছড়া খাসিয়া পুঞ্জির ফুটবল মাঠে আনুষ্ঠানিকভাবে খাসি বর্ষ বিদায় “খাসি সেং কুটস্নেম” পালন করা হচ্ছে। ৭০টি খাসিয়া পুঞ্জি থেকে খাসি নারী পুরুষ, কিশোর- কিশোরীরা এ উৎসবে যোগ দেন।
 

সংবাদটি শেয়ার করুন
cbna24-7th-anniversary

Leave a Reply

Your email address will not be published.

eighteen − fourteen =