জাতিসংঘ প্রবাসের সংবাদ ফিচার্ড

আসছে বছর ২৩ কোটি মানুষের জন্য ৫১.৫ বিলিয়ন ডলার প্রয়োজন

আসছে বছর ২৩ কোটি মানুষের জন্য ৫১.৫ বিলিয়ন ডলার প্রয়োজন

জাতিসংঘ বৃহস্পতিবার জানিয়েছে, আগামী বছর প্রায় ৭০টি দেশে বিশ্বের সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ ২৩ কোটি মানুষকে সাহায্য করার জন্য রেকর্ড ৫১ দশমিক ৫ বিলিয়ন ডলার প্রয়োজন।

যা এই বছরের তুলনায় ২৫ শতাংশ বেশি। এই সত্যটি প্রতিফলিত করে যে, ২০২২ সালের তুলনায় মোট প্রয়োজনের সংখ্যা ৬৫ মিলিয়ন বেশি। জাতিসংঘ এবং অংশীদার সংস্থাগুলো উল্লেখ করেছে যা ‘আশঙ্কাজনকভাবে উচ্চ’।

জাতিসংঘের শীর্ষ জরুরি ত্রাণ কর্মকর্তা মার্টিন গ্রিফিথস বলেছেন, প্রয়োজনগুলো ‘আশঙ্কাজনকভাবে বেশি’। তিনি সতর্ক করে দিয়েছিলেন যে, খুব সম্ভবত এই বছরের জরুরী পরিস্থিতি ২০২৩ সাল পর্যন্ত অব্যাহত থাকবে।

গ্রিফিথ বলেন, ‘প্রয়োজন বাড়ছে কারণ আমরা ইউক্রেনের যুদ্ধে, কোভিড এবং জলবায়ু দ্বারা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছি।’ তিনি বলেছিলেন, ‘আমি ভয় করি যে ২০২৩ এই সমস্ত প্রবণতার কারণ হতে চলেছে এবং সেই কারণেই আমরা আশা করি ২০২৩ সংহতির বছর হবে, ঠিক যেমন ২০২২ দুঃখের বছর ছিল।’

জেনেভায় গ্লোবাল হিউম্যানিটারিয়ান ওভারভিউ রিপোর্ট ২০২৩ প্রকাশ করার সময় গ্রিফিথস এই আবেদনটিকে প্রান্তে থাকা মানুষের জন্য একটি ‘লাইফলাইন’ হিসেবে বর্ণনা করেছেন।

তিনি ব্যাখ্যা করেছিলেন যে পাকিস্তান থেকে আফ্রিকার হর্ন পর্যন্ত অসংখ্য দেশ প্রাণঘাতী খরা এবং বন্যার শিকার হয়েছে। উপরন্তু, ইউক্রেনের যুদ্ধ’ ইউরোপের একটি অংশকে যুদ্ধক্ষেত্রে পরিণত করেছিল। বিশ্বব্যাপী এখন ১০০ মিলিয়নেরও বেশি মানুষ বাস্তুচ্যুত। এই সবই বিশ্বের সবচেয়ে দরিদ্রদের মধ্যে মহামারীর প্রভাবে ধ্বংসযজ্ঞের শীর্ষে।’

যদি ২০২৩-এর জন্য মানবিক দৃষ্টিভঙ্গি এতটাই ভয়াবহ হয়, তবে এটি বড় অংশে কারণ ত্রাণের চাহিদা ইতিমধ্যেই অনেক বেশি।

গ্রিফিথস ব্যাখ্যা করেছেন কমপক্ষে ‘২২২ মিলিয়ন মানুষ এই বছরের শেষ নাগাদ ৫৩টি দেশে তীব্র খাদ্য নিরাপত্তাহীনতার সম্মুখীন হবে।’

দুর্ভিক্ষের হুমকির দিকে ফিরে তিনি বলেছিলেন, পাঁচটি দেশ ‘ইতোমধ্যেই দুর্ভিক্ষের মতো পরিস্থিতির সম্মুখীন হচ্ছে। যেখানে আমরা আত্মবিশ্বাসের সাথে বলতে পারি যে, এর ফলে মানুষ মারা যাচ্ছে – এবং এটি শিশুদের হতে পারে-বাস্তচ্যুতি, খাদ্য, নিরাপত্তাহীনতা, খাদ্যের অভাব, অনাহার।’

ইউক্রেনের বিষয়ে জাতিসংঘের কর্মকর্তা ব্যাখ্যা করেছেন যে ১৩ দশমিক ৬ মিলিয়ন মানুষ সহায়তা পেয়েছে এবং পরের বছর দেশ ও বিস্তৃত অঞ্চলের জন্য মোট ৫ দশমিক ৭ বিলিয়ন চাওয়া হয়েছে।

জলবায়ু পরিবর্তন ঝুঁকি এবং দুর্বলতাও বাড়িয়ে তুলছে, মিঃ গ্রিফিথস বলেন, উদ্বেগের সাথে সামঞ্জস্য রেখে যে শতাব্দীর শেষ নাগাদ প্রচন্ড তাপ ক্যান্সারের মতো অনেক মানুষের জীবন হানি করতে পারে।

জলবায়ু জরুরী অবস্থার সামনের সারিতে থাকা সম্প্রদায় গুলোকে সাহায্য করার জন্য জাতিসংঘের জরুরি ত্রাণ প্রধান বলেছিলেন, মানবতাবাদীদের আন্তর্জাতিক জলবায়ু আলোচনায় একটি বড় ভূমিকা পালন করা উচিত যাতে সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন তাদের জন্য স্থিতিস্থাপকতা তহবিল সুরক্ষিত করতে।

তিনি বলেন, আমি মনে করি যে ‘২০২৩ সালে মানবতাবাদী সম্প্রদায়কে অনেক বেশি সংগঠিত হতে হবে এবং প্রকৃতপক্ষে জলবায়ু প্রতিশ্রুতি সম্পর্কে কীভাবে আরও স্বচ্ছ হতে হবে, অর্থ বিতরণ করার সিদ্ধান্তের বিষয়ে আরও দ্রুত হতে হবে এবং যাদের জন্য এটির প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়েছে সেই অর্থ পেতে হবে।’

 

 


সর্বশেষ সংবাদ

দেশ-বিদেশের টাটকা খবর আর অন্যান্য সংবাদপত্র পড়তে হলে CBNA24.com

সুন্দর সুন্দর ভিডিও দেখতে হলে প্লিজ আমাদের চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন

আমাদের ফেসবুক পেজ   https://www.facebook.com/deshdiganta.cbna24 লাইক দিন এবং অভিমত জানান

সংবাদটি শেয়ার করুন
cbna24-7th-anniversary