বিশ্ব

করোনার কোপ ৬০ দেশে – লাফিয়ে বাড়ছে মৃত্যু

ব্যাংককের চায়না টাউনের ফুটপাথে খাবার বিক্রেতারা গ্রাহকের অপেক্ষায়। ছবি : এএফপি
করোনার কোপ ৬০ দেশে  ব্যাংককের চায়না টাউনের ফুটপাথে খাবার বিক্রেতারা গ্রাহকের অপেক্ষায়। ছবি : এএফপি
করোনার কোপ ৬০ দেশে – লাফিয়ে বাড়ছে মৃত্যু  ।  মধ্যপ্রাচ্য-ইউরোপে জনসমাবেশ ভ্রমণে কড়াকড়ি ।। যুক্তরাষ্ট্র অস্ট্রেলিয়া ও থাইল্যান্ডে প্রথম মৃত্যু ।।  করোনা ঠেকাতে হ্যান্ডশেক, কোলাকুলি পরিহার করুন- আইইডিসিআর 
করোনার কোপ ৬০ দেশে – লাফিয়ে বাড়ছে মৃত্যু , ছড়িয়ে পড়েছে শহরে শহরে ।  চীন ছাড়িয়ে প্রাণঘাতী নোবেল করোনা ভাইরাসের প্রকোপ ছড়িয়ে পড়েছে আরও ৬০টি দেশে। সংক্রমণের বাড়বাড়ন্তের সঙ্গে চীনের বাইরে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে মৃত্যুর সংখ্যা। গতকাল রবিবার পর্যন্ত সব মিলিয়ে গোটা বিশ্বে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণে সৃষ্ট কোভিড-১৯ রোগে মৃতের সংখ্যা তিন হাজার ছাড়িয়েছে। মোট আক্রান্তের সংখ্যা ছাড়িয়েছে ৮৭ হাজার। এর মধ্যে চীনেই মৃতের সংখ্যা ২ হাজার ৮০০-রও বেশি। চীনের বাইরে করোনা ভাইরাসের কারণে রীতিমতো ধুঁকছে দক্ষিণ কোরিয়া, ইরান ও ইতালি। দক্ষিণ কোরিয়ায় এখন পর্যন্ত ৩৭৩৬ জন কোভিড-১৯ আক্রান্ত রোগী পাওয়া গেছে; মারা গেছে ১৮ জন। ইতালিতে মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২৯ জনে, আক্রান্ত হয়েছে ১১২৮ জন। শনিবার ২৪ ঘণ্টায়ই দেশটিতে পাওয়া গেছে ৩০৭ জন রোগী।

ইরানে প্রাণঘাতী এই ভাইরাসে এখন পর্যন্ত ২১০ জনের মৃত্যু হয়েছে বলে দাবি করেছে বিবিসি। তবে এই তথ্য অস্বীকার করে ইরানের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র কিয়ানুস জাহানপুর জানিয়েছেন, গত শুক্রবার রাত পর্যন্ত তাদের দেশে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ৪৩ জন মারা গেছেন। আক্রান্ত হয়েছেন ৫৯৩ জন। এ ছাড়া গতকাল কোভিড-১৯ রোগে যুক্তরাষ্ট্র, অস্ট্রেলিয়া এবং থাইল্যান্ডে একজন করে মারা গেছেন। ভারতের কেরালায় সন্দেহেভাজন এক কোভিড-১৯ আক্রান্ত মারা যাওয়ায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে। নিউইয়র্ক টাইমস বলছে, গতকাল প্রথম যুক্তরাষ্ট্রের ওয়াশিংটনে কোভিড-১৯ আক্রান্ত একজন মারা গেছেন। ওয়াশিংটনে

এখন পর্যন্ত ১৩০ জন কোভিড-১৯ আক্রান্তের সন্ধান পাওয়া গেছে। আবার স্ট্রেইট টাইমস জানিয়েছে, অস্ট্রেলিয়ায়ও এদিন প্রথম কোভিড-১৯ আক্রান্ত হয়ে এক ব্যক্তি মারা গেছেন। ৭৮ বছর বয়সী ওই ব্যক্তি করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়া জাপানি প্রমোদতরী ডায়মন্ড প্রিন্সেসে ছিলেন। সম্প্রতি তিনি দেশে ফিরে আসেন। থাইল্যান্ডেও এদিন কোভিড-১৯ রোগে একজন মারা যান। এ ছাড়া ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস জানিয়েছে, ভারতের কেরালা রাজ্যের এরনাকুলাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে শনিবার সন্দেহভাজন এক কোভিড-১৯ আক্রান্তের মৃত্যু হয়েছে। যদিও রাজ্যের স্বাস্থ্য বিভাগ জানিয়েছে, ওই ব্যক্তি নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন।

এদিকে চীনের বাইরে মধ্যপ্রাচ্যের দেশ ইরান ও ইউরোপের ইতালিতে আক্রান্ত এবং মৃত্যুর সংখ্যা দ্রুত বাড়তে থাকায় আতঙ্ক আরও ছড়িয়ে পড়েছে। এ অঞ্চলের দেশগুলোয় ভ্রমণের ব্যাপারে নিজেদের নাগরিকদের ওপর কড়াকড়ি আরোপ করেছে যুক্তরাষ্ট্রসহ বিভিন্ন দেশ। এসব দেশে থাকা নিজেদের নাগরিকদের কোনো জনসমাগমে অংশগ্রহণেও নিরুৎসাহিত করা হচ্ছে। এনবিসি নিউজ জানিয়েছে, শনিবার মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্স এক ঘোষণায় দেশটির নাগরিকদের ইরান ভ্রমণে আরও বিধিনিষেধ আরোপ করেছেন। কড়াকড়ি আরোপ করা হয়েছে দক্ষিণ কোরিয়া ও ইতালি ভ্রমণেও। করোনার বিস্তার ঠেকাতে ক্যালিফোর্নিয়া অঙ্গরাজ্যের সান ফ্রান্সিসকোসহ বেশ কয়েকটি শহরে এরই মধ্যে ঘোষণা করা হয়েছে স্বাস্থ্যগত জরুরি অবস্থা। এ ছাড়া লাতিন আমেরিকার দেশগুলোয়ও কোভিড-১৯ রোগী পাওয়া যাওয়ায় মেক্সিকো সীমান্তেও নতুন করে কড়াকড়ি আরোপ করেছে ট্রাম্প প্রশাসন।

যুক্তরাজ্য, জার্মানি, ফ্রান্সসহ ইউরোপের বেশ কয়েকটি দেশও তাদের নাগরিকদের ইরান, ইতালি, চীন, হংকং, দক্ষিণ কোরিয়া ভ্রমণে বিধিনিষেধ আরোপ করেছে। সম্প্রতি জনসমাগমের ওপর অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে ফ্রান্স ও সুইজারল্যান্ড। জরুরি সতর্কতা হিসেবে ইরানের সঙ্গে সীমান্ত বন্ধ করে দিয়েছে পাকিস্তানও।

যুক্তরাষ্ট্র অস্ট্রেলিয়া ও থাইল্যান্ডে প্রথম মৃত্যু

বিশ্বব্যাপী ভয়াবহ রূপ ধারণ করেছে করোনা ভাইরাস।করোনার কোপ ৬০ দেশে – লাফিয়ে বাড়ছে মৃত্যু    বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার হিসাব অনুযায়ী ইতিমধ্যে এতে বিশ্বব্যাপী আক্রান্ত হয়েছেন প্রায় ৮৭ হাজার মানুষ। তবে চিকিৎসার পর ইতিমধ্যে পুরোপুরি সুস্থ হয়ে গেছেন ৪২ হাজার ১৬৪ জন। ভাইরাসটি পৌঁছে গেছে ৬৪টি দেশে। গত ৯ দিনে নতুন করে আক্রান্ত হয়েছে ৩৩টি দেশ। বিশ্বব্যাপী মৃতের সংখ্যা প্রায় ৩ হাজার। মৃত্যুর খবর আসছে নতুন আক্রান্ত দেশগুলো থেকে।
করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন প্রথম মার্কিন নাগরিক।

এ ছাড়া, অস্ট্রেলিয়া ও ভারতেও করোনা ভাইরাসের লক্ষণ নিয়ে একজন করে মৃত্যুবরণ করেছেন। মধ্যপ্রাচ্যের দেশ ইরান ও কুয়েতের অবস্থা সব থেকে ভয়াবহ। ইরানে সরকারি হিসাবে করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ৯৭৮। তবে বিবিসি জানিয়েছে, দেশটিতে প্রকৃত অবস্থা অনেক বেশি ভয়াবহ। ইতিমধ্যে সেখানে দুই শতাধিক মৃত্যুর খবর দিয়েছে সংবাদমাধ্যমটি। অপরদিকে কুয়েতে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৪৬ জনে। পাকিস্তানেও নতুন করে আরো দুইজন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন।
করোনা নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রে তোড়জোড়
বিশ্বজুড়ে আতঙ্ক সৃষ্টিকারী এই ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াই জোরালো করেছে ট্রাম্প প্রশাসন। শনিবার যুক্তরাষ্ট্রে মারা যাওয়া ব্যক্তি কভিড-১৯ বা করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার পর জটিল অবস্থায় ছিলেন। এরপর সিয়াটলের কাছে কির্কল্যান্ডে অবস্থিত এভারগ্রিন হেলথ হাসপাতালে তিনি মারা গেছেন। ওয়াশিংটনের স্বাস্থ্য বিভাগের একজন শীর্ষ কর্মকর্তা জেফ্রে ডাচিন বলেছেন, কীভাবে ওই ব্যক্তি করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন সে বিষয়ে কর্মকর্তারা নিশ্চিত নন। কির্কল্যান্ডে আরো দু’জন ব্যক্তি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত বলে জোরালোভাবে মনে করা হচ্ছে। সেখানে কমপক্ষে ৫০ জন অধিবাসী ও স্টাফের মধ্যে করোনার লক্ষণ দেখা দিয়েছে।
জেফ্রে ডাচিন বলেন, এই মুহূর্তে এই ভাইরাস এখানে ব্যাপকভাবে স্থানীয়দের মধ্যে বিস্তার ঘটেনি। দীর্ঘমেয়াদি কেয়ার ফ্যাসিলিটিগুলোর সঙ্গে সম্পর্কিত থাকা থেকেই এই সংক্রমণ ঘটে থাকতে পারে। কির্কল্যান্ডে আরো যে দু’জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন তার মধ্যে একজন স্বাস্থ্যকর্মী। তার বয়স ৪০-এর কোটায়। তার অবস্থা স্থিতিশীল। আক্রান্ত ৭০ বছর বয়সী একজন নারীর বসবাস ওই এলাকায়। তার অবস্থা আশঙ্কাজনক। এটা দুঃখজনক যে, করোনা ভাইরাসে ওয়াশিংটনে একজন মারা গেছেন। তার পরিবার ও বন্ধুদের প্রতি আমাদের সমবেদনা জানিয়েছেন রাজ্যের গভর্নর জে ইন্সলি। তিনি বলেছেন, আমরা আমাদের প্রস্তুতিকে শক্তিশালী করছি এবং সাড়া দেয়ার চেষ্টাকেও শক্তিশালী করছি। আমরা ওয়াশিংটনের মানুষকে সুস্বাস্থ্য ও নিরাপদ রাখতে চাই।
বিশ্বজুড়ে করোনার ভয়াবহ রূপ
করোনা ভাইরাসে সব থেকে ভয়াবহ অবস্থা এর উৎপত্তিস্থল চীনের। সেখানে এখন পর্যন্ত মারা গেছেন ২৮৭০ জন। শনিবার নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন আরো ৫৭৩ জন। এটি পূর্বের দিনের থেকে বেশি। ফলে নতুন করে আবারো বাড়তে শুরু করেছে চীনে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। তবে আক্রান্তদের ৫২ শতাংশ সমপূর্ণ সুস্থ হয়ে বাসায় ফিরে গেছেন। মোট ৭৮ হাজার আক্রান্তের মধ্যে ৪২ হাজারই হাসপাতাল থেকে ছাড়া পেয়েছেন।
চীনের বাইরে সব থেকে ভয়াবহ অবস্থা দক্ষিণ কোরিয়ার। সেখানে শনিবার নতুন করে ২১০ জন আক্রান্ত হয়েছেন এ ভাইরাসে। এতে দেশটিতে মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা গিয়ে দাঁড়ালো ৩৭৩৬ জনে। এখন পর্যন্ত দেশটিতে মারা গেছেন ১৮ জন। এ ছাড়া মধ্যপ্রাচ্যের দেশ ইরানের অবস্থাও ভয়াবহ। সেখান থেকে বিস্তারিত তথ্য প্রকাশ করা হচ্ছে না। তবে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমগুলো জানাচ্ছে, দেশটিতে মৃতের সংখ্যা দুই শতাধিক। মারা গেছেন ইরানের একজন সাংসদও। করোনার বিস্তার রোধে ইরানের সঙ্গে সীমান্ত বন্ধ করে দিয়েছে আজারবাইজান। তবে ইরানের দাবি, করোনা আক্রান্ত হয়ে দেশটিতে মৃত্যু সংখ্যা ৫৬। মধ্যপ্রাচ্যে নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হয়েছে কাতার। এ ছাড়া, অঞ্চলটিতে সংযুক্ত আরব আমিরাতে দ্রুত বাড়ছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। শনিবার এ সংখ্যা ছিল ১৯। শনিবার করোনা ভাইরাসে প্রথম মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে থাইল্যান্ডে।
এশিয়ার বাইরে সব থেকে ভয়াবহ অবস্থা ইউরোপের দেশ ইতালির। সেখানে এখন পর্যন্ত ১১০০ জনেরও বেশি করোনা আক্রান্ত চিহ্নিত হয়েছেন। মারা গেছেন কমপক্ষে ২৯ জন। ইতালি ছাড়া ইউরোপের অন্য দেশগুলোতেও করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়েছে। এরমধ্যে ফ্রান্সে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ১০০ ছাড়িয়েছে।

আরও পড়ুনঃ

সর্বশেষ সংবাদ     
কানাডার সংবাদ
দেশ-বিদেশের টাটকা খবর আর অন্যান্য সংবাদপত্র পড়তে হলে cbna24.com
সুন্দর সুন্দর ভিডিও দেখতে হলে প্লিজ আমাদের চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন

সংবাদটি শেয়ার করুন
cbna24-7th-anniversary
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.

sixteen − 13 =