দেশের সংবাদ

রোগীদের চিকিৎসা দিচ্ছেন নৈশ প্রহরী!

রোগীদের চিকিৎসা দিচ্ছেন নৈশ প্রহরী!

কাটা-ছেঁড়া রোগীদের সেলাইয়ের দরকার হলে সাধারণত জরুরি বিভাগে দায়িত্বরত উপ-সহকারী মেডিক্যাল অফিসার ও ব্রাদারদেরই সেলাই করার কথা। তবে তারা তা করেন না। নৈশ নিরাপত্তা প্রহরীকে দিয়েই এসব কাজ করাচ্ছেন সংশ্লিষ্টরা। ঢাকার ধামরাইয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কাটা-ছেঁড়া রোগীদের প্রথমিক চিকিৎসা দেওয়ার এমনই চিত্র সামনে এসেছে।

জানা গেছে, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নৈশ নিরাপত্তা প্রহরী দিয়ে কাটা-ছেঁড়া রোগীদের চিকিৎসা সেবা দেওয়া হচ্ছে দীর্ঘদিন ধরে। জরুরি বিভাগে কাটা-ছেঁড়া রোগী আসলেই যখন যে চিকিৎসক দায়িত্বে থাকেন তখন তারা ডেকে আনেন নৈশ নিরাপত্তা প্রহরী আবদুর রশিদকে। তাকে দিয়ে চিকিৎসা সেবা কার্যক্রম চালিয়ে থাকেন কর্তৃপক্ষ। হাতে-পায়ে কাটা-ছেঁড়া অধিকাংশ রোগীদের ইনজেকশ ও সেলাই করে থাকেন নৈশ নিরাপত্তা প্রহরী আবদুর রশিদ। শুধু হাতে পায়ে নয় তাকে দিয়ে স্পর্শকাতর স্থানে চেতনানাশক ইনজেকশন পুশ করান জরুরি বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত চিকিৎসকরা।

প্রাথমিক সেবা দিয়ে ডাক্তারের ভূমিকা পালন করে আসছেন আবদুর রশিদ! তাকে ছাড়া যেন হাসপাতালই অচল! ভুক্তভোগীদের এমন অভিযোগে গতকাল বৃহস্পতিবার রাত সোয়া আটটার দিকে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগে এর সত্যতা মেলে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, কালামপুর গ্রামের জসিম উদ্দিনের রক্তাক্ত মাথা পরিষ্কার করছেন ও মাথায় তিনি ইনজেকশন পুশ করছেন। পরে মাথার কাটা স্থানে তিনিই সেলাই করছেন। ওই সময় ওই কক্ষেই একটি চেয়ারে বসে আছেন বোরকা পরিহিত জরুরি মেডিক্যাল অফিসার, উপ-সহকারী মেডিক্যাল অফিসার ও এক ব্রাদার। সেলাই শেষ হলে জরুরি মেডিক্যাল অফিসার চিকিৎসাপত্র দিয়ে ছেড়ে দেন আহত জসিম উদ্দিন ও রাজু নামের এক রোগীকে।

নৈশ নিরাপত্তা প্রহরী আবদুর রশিদ বলেন, ‘আমাকেই দিয়েই বেশির ভাগ কাটা-ছেঁড়া রোগীদের ইনজেকশন ও সেলাই করিয়ে থাকেন স্যারেরা।’ আহত জসিম উদ্দিনের ছেলে সিয়াম জানান, চিকিৎসকরা কক্ষে বসা থাকলেও আমার বাবাকে তারা একটু দেখেও নাই। ইনজেকশন পুশ ও সেলাই করেছেন নৈশ প্রহরী আবদুর রশিদ।

একজন নৈশ প্রহরী দিয়ে কেন স্পর্শকাতর মাথায় ইনজেকশন পুশ করানো ও কাটা স্থানে সেলাই করানোর কথা জিজ্ঞেস করা হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক উল্টো এ প্রতিবেদককে বলেন, আপনার সমস্যা কি?

এনিয়ে কথা হয় উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. নুর রিফফাত আরার সঙ্গে। তিনি বলেন, স্বাভাবিকভাবে ব্রাদার বা উপ-সহকারী মেডিক্যাল অফিসাররা সেলাই করার কথা। কিন্তু যদি নৈশ প্রহরী দিয়ে সেলাই কাজ করিয়ে থাকে তাহলে তাদের বিরুদ্ধে অবশ্যই ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


সর্বশেষ সংবাদ

দেশ-বিদেশের টাটকা খবর আর অন্যান্য সংবাদপত্র পড়তে হলে CBNA24.com

সুন্দর সুন্দর ভিডিও দেখতে হলে প্লিজ আমাদের চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন