La Belle Province

কানাডা, ১৪ জুলাই ২০২০, মঙ্গলবার

বর্ণবাদের কালো থাবা ও ফ্লয়েডের নিষ্পেষিত জীবন

অঞ্জন কুমার রায় | ০৬ জুন ২০২০, শনিবার, ৪:৩৫


সীমাবদ্ধতার দেয়াল; শুনলেই আঁৎকে উঠি! আমাদের এ সমাজে আমরা নিজেরাই বিভাজনের দেয়াল গড়ে তুলি। হোক সেটা সুন্দর কোন মুহুর্তে কিংবা কোন এক কঠিন সময়ের আবর্তনে। সৃষ্টির বিলাসীতার মাঝেই নগ্ন জীবনের পদধ্বনির আভাস আমাদের দিয়ে যায়। এ ঘৃণিত বিভাজন আমাদের সমাজকে প্রোত্থিত করে এক কারান্তরিত সমাজের অঙ্গরুপে। বিভাজনে আমরা অভ্যস্ত হয়ে নিজেকে সীমাবদ্ধতার দেয়ালে আটকে রাখি। কখনো ফিরে দেখতে পাই না বিদগ্ধ জাতির নিষ্প্রভ চেহারা। আবার আমরা নিজেরাই সেই বিভেদটুকু ভাঙ্গার চেষ্টা করি। সেই বিভেদের মাঝেই জেগে থাকে মতানৈক্য যা থেকে শুরু হয় বর্ণ বৈষম্য।

সমাজের এ বিভাজন হতে পারে গায়ের রং এর উপর নির্ভর করে, আঞ্চলিকতায় নির্ভর, কিংবা বর্ণের(Cast) এর উপর ভিত্তি করে। আবার, কখনো এক জাতির প্রতি অন্য জাতির বিদ্বেষমুলক মনোভাব হেতু তৈরি হয়ে থাকে। ফলে সীমাবদ্ধতার মাঝে আরো সীমাবদ্ধতা বেড়ে য়ায়। মানব জাতির ইতিহাসে বর্ণ বৈষম্যের গ্লানি বারবার মানুষকে সহ্য করতে হয়েছে কখনো বা সমাজে নিষ্পেষিত হয়ে, কখনো বা শোষণ-বঞ্চনার শিকার হয়ে। তাতে নেমে আসে ভয়াবহ অন্ধকার। মনোবল ভেঙ্গে মেনে নিতে হয় নিষ্পেষিত জীবন। এভাবেই চলে তাদের জীবন সংগ্রামে ব্রতী হওযার বাসনা।

সমগ্র পৃথিবীতে বর্ণবাদের অস্তিত্ব কম বেশি পরিলক্ষিত হয়। যদিও আফ্রিকায় বর্ণবাদ শুধু মানুষের গায়ের রংয়ের উপরই নির্ভর করতো। দক্ষিণ আফ্রিকা এবং দক্ষিণ পশ্চিম আফ্রিকায় (বর্তমান নামিবিয়া) কয়েক দশক ধরে চলা বর্ণবাদ প্রকৃত পক্ষে জাতিগত বিভাজনের একটি নিদর্শন। শ্বেতাঙ্গ শাসিত সরকার সে দেশে একটি আইন তৈরি করে সামাজিক ও অর্থনৈতিকভাবে সংখ্যালঘু শ্বেতাঙ্গ জনগোষ্ঠীর মাধ্যমে আধিপত্য বিস্তার করতে সক্ষম হয়েছিল। আফ্রিকায় কৃষ্ণাঙ্গ মানুষের উপর ইউরোপ থেকে আসা শ্বেতাঙ্গ মানুষ দ্বারা বৈষম্যের শিকার হলে সেখানেই প্রথম প্রতিবাদ গড়ে উঠে। ১৯৬০ সালে বর্ণবৈষম্যের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানালে পুলিশ তাদের উপর নির্বিচারে গুলি চালিয়ে আন্দোলন দমাতে চেষ্টা করে। দক্ষিণ আফ্রিকার অন্যতম নেতা নেলসন ম্যান্ডেলা এই আন্দোলনে সক্রিয়ভাবে জড়িয়ে পড়েন। সেজন্য তাঁকে ১৯৬২ সালে কারারুদ্ধও করা হয়। সেখানে নিপীড়িত ভারতীয় সম্প্রদায়ের অধিকার আদায়ে ভারতের জাতির জনক মহাত্মা গান্ধী আন্দোলন করেন। সেজন্য তাঁকেও সেখানে অনেক দুর্ভোগ পোহাতে হয়েছিল।

এরপর বর্ণপ্রথা দক্ষিণ আফ্রিকায় সীমাবদ্ধ না থেকে জাতিগত, শ্বেতাঙ্গ-কৃষ্ণাঙ্গ কিংবা সম্প্রদায় ভিত্তিক বর্ণবাদে জড়িয়ে পড়ে অনেক দেশ। আমেরিকা বা ইউরোপে কালোদের দাসত্বের শৃঙ্খলে আবদ্ধ রাখা, জার্মানীর হিটলার কর্তৃক ইহুদি নিধন যা হলোকাস্ট নামে পরিচিত। দক্ষিণ আফ্রিকার বর্ণবাদ যা এ্যাপার্থেড নামে পরিচিত। দাস প্রথার বিলুপ্তি ঘটলেও শ্বেতাঙ্গ বর্ণবাদের সংস্কৃতি থেকে আমেরিকা এখনো বেরিয়ে আসতে পারেনি। সিভিল রাইটস প্রতিষ্ঠার আগে সেখানে কৃষ্ণাঙ্গদের ভোটাধিকার ছিল না। মার্টিন লুথার কিংয়ের হাত ধরেই কৃষ্ণাঙ্গদের ভোটাধিকার ফিরিয়ে আনা সম্ভব হয়েছিল। যদিও জর্জ ওয়াশিংটন কিংবা জেফারসনের মত শ্রেষ্ঠতর ব্যক্তিরা এ বিষয়ে চিন্তাই করেননি।

তথাকথিত জিম ক্রু আইনের অধীনে অ্যাফ্রো অ্যামেরিকানদের সামাজিক আধিকার ছিল খুবই সীমাবদ্ধ৷ যেমন শ্বেতাঙ্গ ব্যবহৃত স্কুল, গীর্জা বা সাধারণ প্রতিষ্ঠান সমূহে তাঁদের প্রবেশাধিকার ছিল না৷ বর্ণবাদের বিষবাষ্পে নিপীড়িত, নিষ্পেষিত, নির্যাতিত কালো মানুষেরা ক্ষুব্ধ হয়েই যুক্তরাষ্ট্রে প্রতিবাদমুখর হয়ে উঠে। যুক্তরাষ্ট্র তথা অন্য দেশেও বর্ণবাদ বিরোধী প্রতিবাদের ঝড় নেমে আসে। মানুষের প্রতি মানুষের বীতশ্রদ্ধ মনোভাব শেষ পর্যায়ে হয়তো নেমে আসে বিক্ষুব্ধতার স্ফূরনে। যেটা লক্ষ্য করতে পারি সাম্প্রতিক সময়ে যুক্তরাষ্ট্রের ঘটনায়।

গত ২৫ মে যুক্তরাষ্ট্রের মিনেসোটা প্রদেশের মিনিয়াপোলিস শহরে জাল নোটের অভিযোগে পুলিশ জর্জ ফ্লয়েড নামে এক ব্যক্তিকে আটক করে। জর্জ ফ্লয়েডকে হাঁটু দিয়ে গলা চিপে হত্যা করে এক শ্বেতাঙ্গ পুলিশ। কাতরাতে কাতরাতে কালো জর্জ ফ্লয়েড মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে। হত্যা করার ভিডিওটি দেখতে পাওয়া যায় সোশ্যাল মিডিয়ায়। একটি মাত্র ভিডিও ক্লিপে আন্দোলন বেগবান হয়ে আসে। কি এমন ঘটনা ঘটেছিল সেখানে? পুলিশ ফ্লয়েডকে সজোরে হাঁটু দিয়ে চেপে ধরেছিল, ফ্লয়েড বাঁচতে চেয়েছিল। বাঁচার আকুতির জন্যই বলেছিল, ” আমি মরে যাচ্ছি, আমি শ্বাস নিতে পারছি না”! কিন্তু পুলিশ তাকে বাঁচতে দিল না। জানা গেল, বর্ণ বিদ্বেষের দরুণ তাকে হত্যা করা হয়। এহেন কর্মকান্ডে জড়িত থাকায় চারজন পুলিশকে চাকরিবিচ্যুত করা হয়। প্রথম দিকে ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা করা হলেও সেটি করতে পারেনি। বর্ণবিদ্বষী হিসেবে হত্যা করা হয়েছে বলে প্রতিবাদমুখর মানুষ সেখানে আন্দোলন করেছে। বর্তমানে করোনার এই সঙ্কটকালীন মুহূর্তেও মানুষ জড়ো হয়ে প্রতিবাদ গড়ে তুলে। সামাজিক অসাম্যের বিরুদ্ধে মার্টিন লুথার কিংয়ের সেই গণআন্দোলনের পর মনে হয় যুক্তরাষ্ট্রে এটাই বড় আন্দোলন যা বর্ণবৈষম্যের বিরুদ্ধে আন্দোলন। আন্দোলনে বিশ্বর অনেক দেশ একাত্মতা ঘোষণা করে প্রতিবাদ চালিয়ে যায়। যুক্তরাষ্ট্রের বিক্ষোভের প্রতি সহিংস প্রকাশ করে যুক্তরাজ্যর ট্রাফালগার স্কয়ারেও অনেক মানুষ জড়ো হয়ে স্লোগানমুখরে প্রতিবাদ করতে থাকে।

এছাড়াও কানাডা, অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ডের চলমান এ ন্যক্কারজনক ঘটনার বিরুদ্ধে শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদ গড়ে তুলে।তবে আশার কথা হলো, এ প্রতিবাদমুখর আন্দোলনে শুধু কালো চামড়া ধারীরাই নয়, শ্বেতাঙ্গরাও আন্দোলনে সমর্থন যুগিয়েছে।

যে দেশে মার্টিন লুথার কিংয়ের জন্ম, সেখানে আজ এমন ঘৃণিত অবস্থা। তিনি তো সে দেশে বসেই স্বপ্ন দেখেছিলেন। বলে গিয়েছিলেন স্বপ্নের কথা। প্রতিবাদের অস্ত্র হিসেবে বেছে নিয়েছিলেন অহিংসাকে। সেখানে দেখতে পাই কৃষ্ণাঙ্গদের আর্তনাদ। হাহাজারিতে প্রকম্পিত হয়ে আসে বায়ু।

যুগ যুগ ধরে এভাবে শুধু আমেরিকায় নয় আমাদের পুরো সমাজে বর্ণবাদের শিকড় প্রোত্থিত হয়ে আছে। বর্ণ বৈষম্যের আচরণে বিক্ষুব্ধ জাতির কাঁন্না কয়জনেই বা খোঁজে ফিরে। মন্যুষত্বের মাঝে জেগে থাকা মানবতার স্পর্শে আমরা সমাজকে জাগাতে অসমর্থ্য হয়ে ব্যর্থতার ধ্বনি শুনতে পাই। যেখানে একটি সমাজের অংশকে শিকলের বন্ধনে আবদ্ধ রেখে পদস্খলন করতে চায়, সেখানে রুঢ়তাকেও হার মানিয়ে ধরা পড়ে সমাজের নগ্ন চিত্র। সমাজের এ নগ্ন চিত্রকে প্রোত্থিত করে রেখেছে আমাদের সমাজেরই কোন এক গোষ্ঠী বা সম্প্রদায়। সুন্দর এ পৃথিবীতে যখন অসুন্দরের আভাস দেখা দেয় আমাদের তখন প্রাণে স্পন্দন ফিরে আসে না। ভেবে নিলাম, আমাদের এ রুঢ়তা কোন এক কালে হয়তো ঢেকে যাবে। কিন্তু; ঘৃণিত মানব সমাজের উত্থান কখন থেমে আসবে। তাদের এ কালো থাবা থেকে কখন নিষ্পেষিত সমাজ রক্ষা পাবে। নাকি চলতে থাকবে বর্ণবাদের চিরাচরিত রূপ।

সৃষ্টির আদি থেকেই মানুষ তথা সমাজের মাঝে দ্বন্দ্ব বিরাজমান। সে দ্বন্দ্ব হোক বর্ণবাদী আচরণে কিংবা সাম্প্রদায়িকতার বেড়াজালে। হয়তো বা কোন এক গোষ্ঠী থেকে অন্য গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে। সীমাবদ্ধতার মাঝে এ বিভাজনে আমরাই মেতে উঠি। প্রতিটি সমাজের রন্ধ্রেই এভাবে তাড়া করে বেড়ায় উগ্রতার নগ্নরূপ। তাদের প্রতি এমন অসাম্য মনোভাব দেখা যেতো না যদি সমাজে সরস ভাবে জেগে থাকা মানুষগুলো অনুভব করতে পারতো বর্ণবাদের বিরুপ প্রতিধ্বনি। দেখতে পেত বর্ণবাদের শোষিত জীবন। তবে এ অসাম্যের মানব সমাজকে বর্ণবাদীর গন্ডী থেকে বের করে নিয়ে আসার চেষ্টায় দেখতে পাই সংহতির পদলেহন। আবার কখনো বা দু’ চার কলম লেখা লেখিতে মত্ত্ব থেকে আড়ষ্ট সমাজকে জাগ্রত করার প্রয়াসে লিপ্ত থেকে আমরা খোঁজে ফিরি আত্মিক বন্ধনের সুষ্ঠু সমাজ।

অঞ্জন কুমার রায়ব্যাংকার ও লেখক

 

সি/এসএস


সর্বশেষ সংবাদ

দেশ-বিদেশের টাটকা খবর আর অন্যান্য সংবাদপত্র পড়তে হলে cbna24.com

সুন্দর সুন্দর ভিডিও দেখতে হলে প্লিজ আমাদের চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন

 

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

Facebook Comments

cbna

cbna24 5th anniversary small

cbna24 youtube

cbna24 youtube subscription sidebar

Restaurant Job

labelle ads

Moushumi Chatterji

moushumi chatterji appoinment
bangla font converter

Sidebar Google Ads

error: Content is protected !!