বিশ্ব

যুক্তরাজ্যে করোনার বিস্ফোরণ আসন্ন- প্রস্তুত সরকার

যুক্তরাজ্যে করোনার বিস্ফোরণ আসন্ন- প্রস্তুত সরকার

করোনা নিয়ে লন্ডনে জাতিগত হামলার শিকার সিঙ্গাপুরের ছাত্র ।।

করোনা পরীক্ষায় অভাবনীয় সাফল্য, ক্ষুদ্রাকৃতির যন্ত্র আবিষ্কার! যুক্তরাজ্যে করোনার বিস্ফোরণ আসন্ন- প্রস্তুত সরকার

যুক্তরাজ্যে করোনার বিস্ফোরণ আসন্ন- প্রস্তুত সরকার । করোনাভাইরাসের বিস্ফোরণ মোকাবিলায় ‘নো-গো জোন’ ঘোষণা এবং জনসমাগম নিষিদ্ধ করার প্রস্তুতি নেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে যুক্তরাজ্য সরকার। ধারণা করা হচ্ছে আগামী কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই যুক্তরাজ্যে করোনাভাইরাসের বিস্ফোরণ ঘটবে। এবং দেশটির কর্মক্ষম জনসংখ্যার ৫০ শতাংশই এতে আক্রান্ত হতে পারে বলেও আশঙ্কা করা হচ্ছে।

করোনাভাইরাসের আসন্ন বিস্ফোরণ মোকাবিলায় সরকারের পরিকল্পনা ও প্রস্তুতির বিষয়ে আজ মঙ্গলবার এক সাংবাদিক সম্মেলনে বিস্তারিত জানাবেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন।

ইতিমধ্যেই কর্তৃপক্ষ হুঁশিয়ারি জারি করেছে যে, আগামী কয়েকদিন এবং সপ্তাহের মধ্যেই যুক্তরাজ্যে ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়বে করোনাভাইরাস।

করোনাভাইরাসের ছড়িয়ে পড়া ঠেকাতে বেশি আক্রান্ত এলাকায় জনসাধারণের চলাচল নিষিদ্ধ করে ‘নো-গো জোন’ ঘোষণা করা, বড় ধরনের কোনো জনসমাগম নিষিদ্ধ করা, অন্তত ১২ সপ্তাহ মানুষকে ঘর থেকে বের না হওয়া এবং ঘরে বসেই অফিসের কাজ করার নির্দেশনা দেওয়া, অবসরে যাওয়া ডাক্তারদেরকেও পুনরায় কাজে ফিরিয়ে আনা এবং পুলিশকেও গুরুতর কোনো অপরাধ বা বিশৃঙ্খলা ব্যাতিত ভিড় না করার নির্দেশনা দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে সরকারের তরফে।

এছাড়া শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোও বন্ধ রাখার ঘোষণা আসতে পারে।

ফ্রান্স সহ ব্রিটেনের প্রতিবেশি অনেক দেশ ইতিমধ্যেই করোনাভাইরাসের ছড়িয়ে পড়া ঠেকাতে এই ধরনের অনেক পদক্ষেপ নিয়েছে।

সূত্র: ডেইলি মেইল

করোনা পরীক্ষায় অভাবনীয় সাফল্য, ক্ষুদ্রাকৃতির যন্ত্র আবিষ্কার!

বিশ্বব্যাপী আতঙ্কের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস। এরই মধ্যে বিশ্বের ৬০টিরও বেশি দেশে ছড়িয়ে পড়েছে নতুন এই ভাইরাস। ইতোমধ্যে এই ভাইরাসে মৃত্যু হয়েছে ৩ হাজারেরও বেশি মানুষের। আক্রান্ত হয়েছেন প্রায় ৯০ হাজার মানুষ।

করোনাভাইরাস যখন বিশ্বব্যাপী দ্রুত ছড়িয়ে পড়ছে, তখন এই ভাইরাসে শনাক্তের ব্যাপারে অবিশ্বাস্য সাফল্য পেলেন মার্কিন প্রকৌশলীরা।

প্রাণঘাতী এই ভাইরাস শনাক্তে একেবারেই ক্ষুদ্রাকৃতির যন্ত্র আবিষ্কার করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের ইন্ডিয়ানা রাজ্যের পুর্ডু ইউনিভার্সিটির বায়োমেডিক্যাল ইঞ্জিনিয়াররা। পুর্ডু ইউনিভার্সিটির এক বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, মাত্র ৪০ মিনিটের মধ্যেই করোনাভাইরাস পরীক্ষার ফল পাওয়া যাবে।

ওই বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, যুক্তরাষ্ট্রের মতো দেশে মাত্র কিছু রাজ্যে সীমিত পরিসরে করোনাভাইরাস পরীক্ষার ব্যবস্থা রয়েছে। ভাইরাসটি ব্যাপকহারে ছড়িয়ে পড়লে বেশিরভাগ মানুষেরই তা পরীক্ষা করানোর উপায় থাকবে না। বিষয়টি মাথায় রেখেই হাতে ধরা এই ডিভাইস আবিষ্কার করা হয়েছে। করোনাভাইরাস পরীক্ষার এই যন্ত্রটি একেবারেই ক্ষুদ্রাকৃতির।

যন্ত্রটি দিয়ে করোনাভাইরাস তো বটেই, অন্যান্য ভাইরাসে আক্রান্ত হলেও শনাক্ত করা যাবে। এমনকি এই ডিভাইসে পরীক্ষার ফলাফল ঝকঝকে পর্দায় পরিষ্কারভাবে দেখা যাবে। প্রকৌশলীরা বলছেন, এই যন্ত্র পর্যাপ্ত পরিমাণে বাজারে ছাড়তে মোটা অংকের টাকার প্রয়োজন।

জানা গেছে, এসিএস ওমেগা জার্নালে প্রথমে ডিভাইসটির ব্যাপারে গবেষণার ফল প্রকাশ হয়। পরে প্রকৌশলীরা এটি তৈরি করেন। বর্তমানে ডিভাইসটি বিপুল সংখ্যক পুনরুৎপাদন করে জনগণের সুবিধার্থে বাজারে ছাড়তে চান গবেষকরা।

গবেষকরা বলছেন, এটি অনেকটাই প্রেগন্যান্সি টেস্টটিউবের মতো। আবার চাইলেই ভাঁজ করে রাখা যায়। সহজেই বহনও করা যাবে। এমনকি মাত্র ৪০ মিনিটে নিখুঁত ফলাফল জানাবে।

করোনা নিয়ে লন্ডনে জাতিগত হামলার শিকার সিঙ্গাপুরের ছাত্র

জোনাথন মোক
প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে বিশ্বব্যাপী। এই আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে ব্রিটেনের লন্ডনেও। সম্প্রতি লন্ডনের রাস্তায় করোনাভাইরাস-সংক্রান্ত বর্ণবাদী আক্রমণে শিকার হয়েছেন সিঙ্গাপুরের এক ছাত্র। লন্ডনের রাস্তায় ওই ছাত্রকে একদল যুবক প্রকাশ্যে মারধর করেছে। এদিকে, লন্ডন মেট্রোপলিটন পুলিশ এ বিষয়ে তদন্ত করছে বলে জানা গেছে।

লন্ডন মেট্রোপলিটন পুলিশের একজন মুখপাত্র জানিয়েছেন, ২৪ ফেব্রুয়ারি রাত ৯ টা ৩০-এ টটেনহাম কোর্ট রোড স্টেশনের নিকটবর্তী অক্সফোর্ড স্ট্রিটে ‘জাতিগতভাবে মারাত্মক হামলা’র শিকার হয়েছেন এক তরুণ।

ওই মুখপাত্র বলেছেন, ২৩ বছর বয়সী ওই তরুণকে ঘুষি মারা হয়েছে। মুখমন্ডলে আঘাত করে আহত করা হয়েছে তাকে।

পুলিশ ওই ছাত্রকে সনাক্ত করতে পারেনি।

তবে, স্ট্রেইটস টাইমস জানতে পেরেছে, ওই শিক্ষার্থীর নাম জোনাথন মোক। তিনি  লন্ডন বিশ্ববিদ্যালয় কলেজে পড়াশুনা করছেন। আইন বিষয়ের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী তিনি।

মঙ্গলবার (৩ মার্চ) সন্ধ্যায় তার ফেসবুক পেজে ওই ঘটনার কথা উল্লেখ করে একটি পোস্ট দেন তিনি। সেখানে তিনি নিজের দুটি ছবিও পোস্ট করেছেন।

তিনি জানান, অক্সফোর্ড স্ট্রিট দিয়ে হেঁটে যাবার সময় একদল যুবক তার ওপর হামলা চালিয়েছে।

মোক বলেন, তাদের মধ্যে একজনকে ‘করোনভাইরাস’ বলতে শুনে আমি তার দিকে ফিরে তাকাই। তখন সে লোকটি চেঁচিয়ে উঠে বলল , ‘তুমি আমার দিকে তাকানোর সাহস করো না …’ এবং পথিকরা দলটিকে থামানোর চেষ্টা করার সাথে সাথে বারবার আমাকে মুখে ঘুষি মারল।

তিনি বলেন, একজন লোক মুখে ঘুষি মারার আগে ‘আমার দেশে তোমার করোনাভাইরাস চাই না’ বলে চেঁচিয়ে উঠে।

পুলিশ আসার আগেই এই দলটি পালিয়ে যায় বলে জানান তিনি।

লন্ডনের পুলিশ জানিয়েছে, এ ঘটনায় এখনো কাউকে গ্রেপ্তার করা হয়নি। তবে এ ঘটনার তদন্ত চলছে।

পুলিশ জানায়, ক্লোজ-সার্কিট টেভি ফুটেজের মাধ্যমে সন্দেহভাজনদের সনাক্ত করার চেষ্টা চলছে।

মোক জানিয়েছেন, তিনি হাসপাতালের জরুরি বিভাগে ভর্তি হয়েছেন। সেখানে তাকে বলা হয়েছে যে, তাঁর মুখে গুরুতর আঘাত করা হয়েছে।

এদিকে, আরো তথ্য সংগ্রহ করতে স্ট্রেইট টাইমসের পক্ষ থেকে মোকের সঙ্গে যোগাযোগ করা হচ্ছে।

সূত্র : স্ট্রেইটস টাইমস

আরও পড়ুনঃ

সর্বশেষ সংবাদ     
কানাডার সংবাদ
দেশ-বিদেশের টাটকা খবর আর অন্যান্য সংবাদপত্র পড়তে হলে cbna24.com
সুন্দর সুন্দর ভিডিও দেখতে হলে প্লিজ আমাদের চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন

 

cbna24-7th-anniversary
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.

eleven − 9 =