ছোটদের পাতা ফিচার্ড বঙ্গবন্ধুর জন্ম শতবার্ষিকী

বছর ঘুরে শোকাবহ আগস্ট |||  প্রজ্ঞা চৌধুরী প্রাপ্তি

বঙ্গবন্ধুর স্কেচঃ অনুস্কা ধর দিঘী, শব্দ সংযোজনঃ প্রজ্ঞা চৌধুরী প্রাপ্তি এবং ডিজাইনঃ সদেরা সুজন

বছর ঘুরে শোকাবহ আগস্ট |||  প্রজ্ঞা চৌধুরী প্রাপ্তি

বছর ঘুরে আগস্ট মাস এলেই বুকের ভেতরটা কেমন যেন নাড়া দিয়ে ওঠে। তটস্থ হৃদয় যেন বারবার বলে,ওই কেউ পেছন থেকে আঘাত করে জীবনের রাশ টেনে ফেলল বোধ হয়! বসিয়ে দিল নামের ওপর এক বৃহদাকার চন্দ্রবিন্দু। বাক্যটা শুনতে খুব হাস্যকর কিন্তু এই বাক্যটি কোনো কৌতুকাবহ অভিজ্ঞতার ফল অবশ্যই নয়।

সালটা ১৯২০ – বুধবার তদানিন্তন ফরিদপুর জেলার গোপালগঞ্জ মহকুমার ( পরবর্তীতে গোপালগঞ্জ জেলা) টুঙ্গিপাড়া গ্রামে শেখ লুৎফর রহমান এবং সায়রা খাতুনের কোল আলো করে ভূমিষ্ট হলো এক আলোকোজ্জ্বল মুখ যার নাম রাখা হয় খোকা। হ্যাঁ, ইনিই হাজার বছরের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতীর জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। ছাত্রজীবন থেকে শুরু করে দীর্ঘ আন্দোলন সংগ্রামের মাধ্যমে বাংলাদেশের স্বাধীনতা অর্জনের পেছনে যার ভূমিকা ছিল ঐতিহাসিক ভাবে গুরুত্বপূর্ণ এবং মূখ্য। দেশের দুস্ত, দারিদ্র্য পীড়িত জনগণের প্রতি তাঁর নিঃস্বার্থ ভালোবাসা, বাঙ্গালী জাতির মুক্তি চেতনা  তারচেয়েও বড় কথা জনগণের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা অনেকের ইর্ষার কারণ হয়ে দাঁড়ায়।

যুদ্ধ জয়ের মাত্র সাড়ে তিন বছরের মধ্যে যুদ্ধবিদ্ধস্ত দেশকে পুনরুজ্জীবিত করে বাঙ্গালীকে একটি শক্তিশালী আত্মনির্ভরশীল জাতি হিসাবে গড়ে তোলার প্রাথমিক ধাপ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান অতিক্রম করেছিলেন যার ফলশ্রুতিতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সাধারণ জনগণের গভীর শ্রদ্ধা ও ভালোবাসার পাত্র হয়ে উঠেছিলেন।

ফলে দেশি-বিদেশি কুচক্রী মহলের প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ মদদে বঙ্গবন্ধুর ধর্মনিরপেক্ষ সরকারকে উৎখাত  করে পাকিস্তান পন্থী একটি সরকার ব্যবস্থা প্রবর্তনের লক্ষ্যে  ১৯৭৫ সালের ১৫ই আগস্ট খোন্দকার মোস্তাক আহমেদের নেতৃত্বে সামরিক বাহিনীর মধ্যম সারির কতিপয় ঘৃণ্য ও অসৎ কর্মকর্তা  বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঢাকার ধানমন্ডি ৩২ নং বাড়িতে হানা দিয়ে স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি রাষ্টপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, স্ত্রী বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব, পুত্র শেখ  কামাল, শেখ জামাল, সাত বছরের শিশু পুত্র শেখ রাসেল, পুত্র বধু সুলতানা কামাল খুকি, পারভিন জামাল রোজী, ভাই শেখ আবু নাসের সহ আরোও ক’জনকে বুলেটের আঘাতে নির্মমভাবে হত্যা করে। একই সময়ে ভাগনে যুব নেতা শেখ ফজলুল হক মনি এবং ভগ্নপতি ও মন্ত্রী আবদুর রব সেরনিয়াবাত এর বাসায়ও আক্রমণ করে অনেককে হত্যা করা হয়।

দেশে গণবিক্ষোভ হবার সম্ভাবনা দেখা দেওয়ায় সামরিক ছত্রছায়ায় হেলিকপ্টারযোগে অতি সংগোপনে টুঙ্গিপাড়ার গ্রামের বাড়ির পারিবারিক কবরস্থানে বঙ্গবন্ধুকে এবং পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের রাজধানী ঢাকায় সমাহিত করা হয়। বঙ্গবন্ধুর দুই কন্যা -শেখ হাসিনা এবং শেখ রেহানা দেশের বাইরে অবস্থান করায় প্রাণে রক্ষা পান। অতঃপর ১৯৮১ সালে বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা  দেশে ফিরে আসলে তাঁকে নিয়ে নানান ষড়যন্ত্রের জাল ঘাতকেরা বুনতে থাকে এবং একাধিকবার হত্যাচেষ্টা করা হয় ।

২০০৪ সালের ২১ শে আগস্ট শনিবার গণতন্ত্র পুনরুজ্জীবিত এবং ভোটাধিকার প্রতিষ্টার দাবীতে বঙ্গবন্ধু এভিনিউ আওয়ামী লীগ কার্যালয়ের সামনে এক সমাবেশে আহ্বান করা হয়। দলের প্রধান ও তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেত্রী শেখ হাসিনা ছিলেন সমাবেশের প্রধান অতিথি। আওয়ামী লীগ অফিসের সামনে রাস্তায় একটি ট্রাকে একটি অস্থায়ী মঞ্চে বিকেলে দলের সিনিয়র নেতাদের বক্তব্যের পর দলনেত্রীর বক্তব্য চলাকালে হঠাৎ একটি বিকট শব্দ শুনে আৎকে উঠেন সবাই। অল্প কিছুক্ষণের মধ্যেই বুঝতে পারেন এটি গ্রেনেড হামলা। ঘন ঘন বিস্ফরণের শব্দে কেঁপে কেঁপে উঠছিল পুরো এলাকা। ধারণা করা হয় শেখ হাসিনাকে লক্ষ্য করেই নিক্ষেপ করা হয় গ্রেনেড। মাত্র দেড় মিনিটের মধ্যে বিস্ফোরিত হয় এগারোটি শক্তিশালী গ্রেনেড। ইতিহাসের জগন্যতম এই হামলায় চব্বিশ জন নিহত এবং জননেত্রী শেখ হাসিনা সহ তিনশত জন নেতাকর্মী আহত হন। ভাগ্যক্রমে বেঁচে যান আজকের জনদরদী,সমাজহিতৈষী বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এই আগস্ট বারবার বাংলা ও বাঙালির ইতিহাসকে কলঙ্কিত করেছে। নির্মূল করার চেষ্টা করা হয়েছে শেখ পরিবারের শেষ রক্ত বিন্দু। আর যেন এমন ঘটনার পুনরাবৃত্তি না ঘটে এবং পচাত্তরের পনেরোই আগষ্ট এবং দুই হাজার চার সালের গ্রেনেড হামলায় নিহত সকলের আত্মার শান্তি কামনা করি। বাংলার মানুষ শান্তিতে থাকুক, স্বস্তিতে থাকুক- এই প্রত্যাশা করি।

বছর ঘুরে শোকাবহ আগস্ট |||  প্রজ্ঞা চৌধুরী প্রাপ্তি – খুদে লেখক

 



সর্বশেষ সংবাদ

দেশ-বিদেশের টাটকা খবর আর অন্যান্য সংবাদপত্র পড়তে হলে CBNA24.com

সুন্দর সুন্দর ভিডিও দেখতে হলে প্লিজ আমাদের চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন

আমাদের ফেসবুক পেজ   https://www.facebook.com/deshdiganta.cbna24 লাইক দিন এবং অভিমত জানান

আপনার মতামত দিন