কানাডার সংবাদ ফিচার্ড

মন্ট্রিয়লে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে জীব বৈচিত্র্য সংক্রান্ত জাতিসংঘ কনভেনশন

পৃথিবীর হারিয়ে যাওয়া বিলুপ্ত প্রাণী...ছবি: সংগৃহিত

আগামীকাল থকে মন্ট্রিয়লে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে জীব বৈচিত্র্য সংক্রান্ত জাতিসংঘ কনভেনশন (CBD) ১৫তম বৈঠক (COP15)

আগামীকাল ৩ ডিসেম্বর শনিবার থেকে শুরু হতে যাচ্ছে জাতিসংঘের উদ্যোগে বিশ্ব জীব বৈচিত্র সম্মেলনের ১৫তম আসর। মন্ট্রিয়লের প্রাণকেন্দ্র ডাউনটাউনের প্যালে দ্য কংগ্রে তে অনুষ্ঠিত হবে এ সম্মেলন। বিশ্বের ১৯৬টা দেশ এই সম্মেলনে অংশগ্রহণ করবে। এ সম্মেলনকে কেন্দ্র করে মূল ভেন্যুস্থল প্যালে দ্য কংগ্রে এলাকার চারপাশ বিশেষ নিরাপত্তায় রাখা হয়েছে। জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস, কানাডার প্রাধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো সহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশের রাস্ট্রপ্রধান, পরিবেশ বিষয়ক মন্ত্রী, উপদেষ্টা, বিশেষজ্ঞ, সংবাদিক, গবেষকরা উপস্থিত থাকবেন।

আগামীকাল সম্মলনেরে উদ্বােধনী হলেও ধারাবাহকিভাবে মূল র্পবগুলো ৭ থেকে ১৯ ডিসেম্বর, ২০২২ পর্যন্ত ১৩ দিনব্যাপী মন্ট্রিয়ল এ অনুষ্ঠিত হবে। জীব বৈচিত্র্য সংক্রান্ত জাতিসংঘ কনভেনশন (CBD) সম্মেলনের ১৫তম বৈঠক (COP-15) এর দ্বিতীয় পর্ব।সম্মেলনের প্রথম পর্ব চীনের কুনমিং শহরে ২০২১ সালের ১১ই অক্টোবর অনুষ্ঠিত হয়। বৈশ্বিক মহামারি কভিড-১৯ এর প্রাদুর্ভাব চলায় তা ভার্চুয়ালি সম্পন্ন হয় এবং তাতে সীমিত সংখ্যক প্রতিনিধিগণ অংশগ্রহন করেন।
কভিড-১৯ পরিস্থিতি স্বাভাবিক হওয়ায় বর্তমানে উক্ত সম্মেলনের দ্বিতীয় পর্ব কানাডার মন্ট্রিয়লে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে।
জাতিসংঘের জীববৈচিত্র্য সম্মেলনে একসাথে তিনটি সভা অনুষ্ঠিত হবেঃ
১. কনভেনশন অন বায়োলজিক্যাল ডাইভারসিটি (CBD) এর কনফারেন্স অফ দ্য পার্টিস (COP-15) এর পঞ্চদশ সভা।
২. জৈব নিরাপত্তা সংক্রান্ত কার্টেজেনা প্রোটোকলের পক্ষগুলির সভা হিসাবে পরিবেশনকারী দলগুলির সম্মেলনের দশম সভা।
৩. জেনেটিক রিসোর্সে অ্যাক্সেস এবং তাদের ব্যবহার থেকে উদ্ভূত সুবিধার ন্যায্য ও ন্যায়সঙ্গত ভাগাভাগি নিয়ে নাগোয়া প্রোটোকলের পক্ষগুলির বৈঠক হিসাবে পরিবেশনকারী দলগুলির সম্মেলনের চতুর্থ সভা।
উল্লেখ্য যে, জীববৈচিত্র্য শীর্ষ সম্মেলনটি মিশরে ঈঙচ-২৭ এর ঠিক দুই সপ্তাহ পরে কানাডার মন্ট্রিয়ালে অনুষ্ঠিত হচ্ছে, যেখানে সরকারগুলি জীববৈচিত্র্য হ্রাস রোধে এই দশকের লক্ষ্যগুলি নিয়ে আলোচনা করবে। মানবস্বাস্থ্য এবং সভ্যতার পরিণতি সম্পর্কে অশুভ বৈজ্ঞানিক সতর্কতা সত্ত্বেও, কাতারের ফুটবল বিশ্বকাপের কারণে কয়েকজন বিশ্ব নেতা উক্ত সভায় অংশ নেওয়া থেকে বিরত থাকবেন।
COP-15   এ ১৯৬টি সরকার জীববৈচিত্র্যের উপর বিশ্বব্যাপী পদক্ষেপগুলিকে গাইড করার জন্য একটি যুগান্তকারী চুক্তিতে স্বাক্ষর করবেন। ২০৩০ সালের মধ্যে প্রকৃতির ক্ষতি বন্ধ এবং সংঘটিত ক্ষতি পুষিয়ে নেবার জন্য একটি উচ্চাভিলাষী পরিকল্পনা তৈরি করতে হবে যা প্রকৃতির ক্ষতির মূল চালকগুলিকে মোকাবেলা করতে সমর্থ হয়।
কপ-১৫ সম্মেলন এর গুরুত্ব হিসেবে মানুষের কার্যকলাপের ফলে পৃথিবী গ্রহটি দিন দিন প্রকৃতির একটি বিপজ্জনক পতনের সম্মুখীন হচ্ছে। জীববৈচিত্র্যের ক্ষতি মোকাবেলায় কাজ করা ক্রমশ জরুরি হয়ে পড়ছে। ডাইনোসরের পর এটি সবচেয়ে বড় প্রাণহানির সম্মুখীন হচ্ছে। এক মিলিয়ন উদ্ভিদ ও প্রাণী প্রজাতি এখন বিলুপ্তির হুমকিতে রয়েছে।
মানবতার অস্তিত্ব নির্ভর করে বিশুদ্ধ বাতাস, খাদ্য এবং একটি বাসযোগ্য জলবায়ুর উপর, যার সবই প্রকৃতি দ্বারা নিয়ন্ত্রিত। একটি সুস্থ গ্রহ ও স্থিতিস্থাপক অর্থনীতির অগ্রদূত। বৈশ্বিক জিডিপির অর্ধেকেরও বেশি স্বাস্থ্যকর বাস্তুতন্ত্রের উপর নির্ভরশীল যা প্রায় $৪১.৭০ ট্রিলিয়নের সমান।
উন্নত এবং উন্নয়নশীল দেশগুলির কোটি কোটি মানুষ প্রতিদিন প্রকৃতি থেকে যে সুবিধাগুলি গ্রহণ করে উপকৃত হয় তা হচ্ছে খাদ্য, শক্তি, উপকরণ, ওষুধ, বিনোদন এবং মানব কল্যাণে অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ সুবিধাদি।
টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা পূরণ এবং বৈশ্বিক উষ্ণতা ১.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসে সীমাবদ্ধ করার জন্য স্বাস্থ্যকর বাস্তুতন্ত্রগুলিও গুরুত্বপূর্ণ, তবুও জলবায়ু পরিবর্তন সম্ভবত শতাব্দীর শেষ নাগাদ জীববৈচিত্র্যের ক্ষতির অন্যতম প্রধান চালক হয়ে উঠবে।
COP15 এর লক্ষ্য ২০১৫ সালের প্যারিস জলবায়ু চুক্তির সমতুল্য, প্রকৃতির ক্ষতি বন্ধ এবং বিপরীত করার জন্য একটি ঐতিহাসিক চুক্তি অর্জন করা। মন্ট্রিয়লে গৃহীত হবে পৃথবিীর ক্রমহ্রাসমান জীববৈচিত্র্যকে বাঁচানোর জন্য একটি বৈশ্বিক ব্লুপ্রিন্ট।
মূল বিষয়গুলোর মধ্যে মন্ট্রিয়লে অনেক বিষয়ে আলোচনা হবে। খসড়া কাঠামোতে কীটনাশক ব্যবহার হ্রাস, আক্রমণাত্মক প্রজাতির মোকাবেলা, পরিবেশের জন্য ক্ষতিকারক ভর্তুকি সংস্কার বা বাদ দেওয়া এবং সরকারী ও বেসরকারী উভয় উৎস থেকে প্রকৃতির জন্য অর্থায়ন বাড়ানোর প্রস্তাব থেকে ২০টিরও বেশি লক্ষ্য অন্তর্ভুক্ত রয়েছে।
বাস্তব অগ্রগতি সাধন করতে হলে পরিকল্পনাটি উচ্চাকাঙ্খী এবং কার্যকরী উভয়ই হতে হবে এবং এটি অবশ্যই প্রকৃতির ক্ষতির পাঁচটি মূল চালককে মোকাবেলা করতে হবে, যথা সমুদ্র এবং ভূমির ব্যবহার পরিবর্তন করা, জীবের অত্যধিক শোষণ, জলবায়ু পরিবর্তন, দূষণ এবং আক্রমণাত্মক অস্থানীয় প্রজাতি (invasive non-native species) এবং তাদের অন্তর্নিহিত কারণ যেমন টেকসই ব্যবহার এবং উৎপাদন।
অনেক এলাকায় জীববৈচিত্র্যের ৮০ শতাংশ ক্ষতির কারণ হচ্ছে, ভূমি বিভক্তকরণ এবং এর ব্যবহারের পরিবর্তন – কৃষি এবং শহুরে বিস্তৃতি, যে কারণে এটি মোকাবেলা করা গুরুত্বপূর্ণ।
এটিও গুরুত্বপূর্ণ যে COP15-এ পৌঁছানো সমাধানগুলি সমস্ত সমাজকে অন্তর্ভুক্ত করে, আর্থিক খাত এবং ব্যবসার পাশাপাশি সরকার, এনজিও এবং সুশীল সমাজ। প্রকৃতির সাথে সম্পর্কিত সিদ্ধান্ত গ্রহণের প্রক্রিয়ায় আদিবাসী এবং স্থানীয় সম্প্রদায়ের অংশগ্রহণ এবং ভূমিতে তাদের অধিকারের স্বীকৃতি বিশেষভাবে গুরুত্বপূর্ণ।
মানবতার প্রতিটি ক্ষেত্রে সুস্থ বাস্তুতন্ত্রের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকার পরিপ্রেক্ষিতে, এটি অত্যাবশ্যক যে মন্ট্রিয়ল চুক্তিতে পৌঁছানো এবং  প্রাকৃতিক জগতের পতন বন্ধ করা বিশ্বের জন্য জরুরি।

এই সম্মেলনে বাংলাদেশ থেকে পরিবেশ মন্ত্রীসহ একটি প্রতিনিধিদল আসছেন বলে জানা গেছে। কানাডা-বাংলাদেশ নিউজ এজেন্সি সিবিএনএ ২৪ডটকম সম্মেলনের সংবাদ ও ছবি পরিবেশন করবে।

তথ্যসূত্র: জাতিসংঘ প্রেরীত সম্মেলন বুলেটিন ও অন্যান্য

 

 



সংবাদটি শেয়ার করুন
cbna24-7th-anniversary