কানাডার সংবাদ

ক্যুইবেকে করোনা পলায়ন পরে গ্রেফতার !

শুক্রবার বিকেলে কোয়ারেনটাইন ভাঙার কারণে করোনাভাইরাস আক্রান্ত এক মহিলাকে ক্যুইবেক সিটি পুলিশ গ্রেপ্তার করেছে। ছবি কৃতজ্ঞতায়  (স্টিভ জোলিকোয়র / রেডিও-কানাডা)

কানাডার ক্যুইবেক প্রদেশে এই প্রথম কোন রোগি চিকিৎসাধীন থাকাবস্থায় পলায়ন করাতে পুলিশ গ্রেফতার করতে বাধ্য হয়েছে। পুলিশ মুখপাত্র বলেছেন, ‘আমরা এই প্রথম এই ধরণের ওয়ারেন্ট কার্যকর করেছি।’ মে মাস পর্যন্ত ক্যুইবেকের সব স্কুল বন্ধ থাকতে পারে বলে অভিমত ব্যক্ত করেছেন ক্যুইবেক প্রদেশের প্রিমিয়ার François Legault

ক্যুইবেকে করোনা পলায়ন পরে গ্রেফতার ! শিরোনাম যেমনই হোক ঘটনাটি সত্য।  পৃথক পৃথক ব্যবস্থা থাকা সত্ত্বেও নগরীর  বাইরে থাকার কারণে করোনাভাইরাসটির জন্য  পরীক্ষায় করোনাসংক্রামক পাওয়া এক মহিলাকে ক্যুইবেক  সিটি পুলিশ গ্রেপ্তার করেছে।

ক্যুইবেক প্রভিন্সিয়াল স্বাস্থ্য অধিদপ্তর বিভাগ  কর্তৃপক্ষের অভিয়োগে এবং  আদেশে এই মহিলা, যিনি সম্ভাব্য সংক্রামক নিয়ে পালিয়েছিলেন, আজ শুক্রবার দুপুর ২ টার দিকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

পুলিশের মুখপাত্র স্যান্ড্রা ডিওন বলেছেন, “এই প্রথম আমরা এই ধরণের পরোয়ানা কার্যকর করেছি।”

রেডিও-কানাডার মাধ্যমে জানা যায় , করোনা আক্রান্ত  মহিলা পুলিশেকে সহযোগিতা করেছিলেন এবং ফলেই  তাকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। তিনি অভিযোগের মুখোমুখি হবেন কিনা তা এখনও পরিষ্কার নয়।

ক্যুইবেক প্রভিন্সের  আঞ্চলিক স্বাস্থ্য সংস্থা, সিআইইউএসএস ডি লা ক্যাপিটাল-নেশনালে এক বিবৃতিতে বলেছে, পুলিশকে হস্তক্ষেপ করতে বলা হয়েছিল।

ক্যুবেক এর জনস্বাস্থ্য আইনের নিয়ম অনুসারে যদি যে কেউ স্বাস্থ্য এবং অন্যদের নিরাপত্তায় বিঘ্ন ঘটায়  এবং জনস্বাস্থ্য জরুরি অবস্থা চলাকালে কোন সমস্যা সৃষ্টি করে তাহলে তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের ক্ষমতা কর্তৃপক্ষ দিয়েছে। প্রদেশটি  একটি ১০  দিনের জনস্বাস্থ্য জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেছে – ক্যুইবেকের ইতিহাসে এটি প্রথম।

স্বাস্থ্য সংস্থাটি বলেছে, ”  প্রদেশের প্রতিটি নাগরিকের সুস্বাস্থ্য নিশ্চিত করতে  আমরা আমাদের  প্রয়োজনীয় সকল ব্যবস্থা গ্রহণ ও  ব্যবহার করব।”

ক্যুইবেকে করোনা পলায়ন পরে গ্রেফতার ! শুক্রবার কানাডায় কোভিড -১৯ সংখ্যাটি ১০৫০  ছাড়িয়ে গেছে এবং সারা বিশ্বে ২৪২,০০০ এরও বেশি রয়েছে। শুধু ক্যুইবেক প্রদেশেই  ১৩৯ টি নিশ্চিত রোগি রয়েছে এবং একটি মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে। আগামী দিনে এই সংখ্যা আরো বাড়বে বলে আশা করা হচ্ছে। বলতে গেলে প্রতি ঘন্টায় বাড়ছে। সারা প্রভিন্সের মানুষ মূলত গৃহবন্দি এবং শংকা আর আতঙ্কিত।

আজ এক সংবাদ সম্মেলনে ক্যুইবেক প্রদেশের প্রধান মন্ত্রী কিংবা প্রিমিয়ার মি. ফ্রাঞ্কোয়িস লেগুল্ট  ঘোষণা করেছেন করোনা ভাইরাসের প্রভাবে সবাই চিন্তিত। প্রতিদিন সংক্রামক রোগির সংখ্যা বাড়ছে ফলে জনগণের জনস্বাস্থ্য চিন্তা করে প্রভিন্সের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো মে মাস পর্যন্ত ছুটি অব্যাহত হয়তো রাখতে হবে।



 

cbna24-7th-anniversary
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.

fifteen − ten =