ফেসবুকের পাতা থেকে

হঠাৎ ফেসবুকে ভাইরাল সিলেটের মাজার রোড, কেন?

হঠাৎ ফেসবুকে ভাইরাল সিলেটের মাজার রোড, কেন?
তার ও খুঁটিহিীন সিলেটের মাজার রোড। ছবি: ফেসবুক

একটি কুড়ি দুটি পাতার দেশ সিলেট। তবে ৩৬০ আউলিয়ার দেশ হিসেবে সমাধিক পরিচিত বাংলাদেশের উত্তর পূর্বাঞ্চলীয় এই শহর।

চা-বাগান ও সবুজ পাহাড় দেখতে এবং হযরত শাহজালাল (রহ.) এর মাজার জিয়ারতের উদ্দেশে বছরজুড়েই পর্যটকের ভিড় জমে সিলেট শহরে।

তবে হঠাৎ করেই ভিন্ন একটি বিষয় নিয়ে ব্যাপক আলোচনায় এসেছে সিলেট শহর।

শহরের দরগাহ গেইট এলাকার একটি ছবি হঠাৎ করেই ভাইরাল হয়েছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে। ওই একই রাস্তার পুরনো ও নতুন দুটি ছবি জোড়া দিয়ে ফেসবুকে পোস্ট করতে দেখা গেছে নেটিজেনদের।

পাশাপাশি সিলেট সিটি কর্পোরেশনের ভূয়সী প্রশংসায় মেতেছেন তারা। কেউ কেউ ফেসবুকে লাইভে গিয়ে সেই রাস্তায় হেঁটেছেন।

ছবি দুটির একটিতে (নতুন) দেখা গেছে, দরগাহ রোডের ভবনগুলোর ওপর ও আশপাশের কোথাও কোনো তার ঝুলে নেই। এমনকি নেই কোনো বৈদ্যুতিক খুঁটি। এ যেন বাংলাদেশের বাইরের কোনো উন্নত শহরের দৃশ্য।

জানা গেছে, ডিজিটাল স্মার্ট প্রকল্প গ্রহণ করে শহরের দরগাহ গেইট এলাকার সড়ক থেকে সব তারের জঞ্জাল ও বিদ্যুতের খুঁটি সরিয়ে ফেলেছে সিলেট সিটি করপোরেশন।

সে অর্থে সিলেটের এই রাস্তাই হলো বাংলাদেশে প্রথম ঝুলে থাকা তার আর বৈদ্যুতিক খুঁটিবিহীন শহর।

এতে বেশ খুশি স্থানীয়রা। এছাড়া লন্ডনে অবস্থানরত সিলেটবাসীরাও বিষয়টিতে আপ্লুত ও মুগ্ধ। তারা বাংলাদেশ সরকারের প্রতি কৃতজ্ঞান জানিয়ে বলছেন, বাংলাদেশে আধুনিক ডিজিটাল শহর হিসেবে সিলেটই প্রথম নাম লেখাল।

আরও পড়ুনঃ মুজিববর্ষ উদ্‌যাপন অনুষ্ঠানে জাস্টিন ট্রুডো

আরও পড়ুনঃ বিস্ফোরণে কেঁপে উঠল বাজার, নিহত ৩০

আরও পড়ুনঃ বিলেতে কমলগঞ্জের শতজন

এ বিষয়ে সিলেট সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা বিধায়ক রায় চৌধুরী বিবিসিকে বলেন, হ্যা, এটি একটি পাইলট প্রকল্প। শুরুটা সিলেটের সবচেয়ে বেশি পর্যটনমুখর এলাকা মাজার রোড দিয়ে করা হয়েছে। আমরা দরগাহ গেইট থেকে আম্বরখানা সড়ক পর্যন্ত সব বিদ্যুতের খুঁটি সরিয়ে নিয়েছি। ঝুলে থাকা ডিস ক্যাবল, বৈদ্যুতিক সংযোগ তার সব কিছুই সরিয়ে আন্ডারগ্রাউন্ড করে দিয়েছি। এতে পুরো এলাকা দৃষ্টিনন্দন রূপ পেয়েছে।

এভাবে পর্যায়ক্রমে পুরো শহর থেকে তার ও খুঁটি সরিয়ে এসব পরিষেবার লাইন মাটির নিচ দিয়ে নেয়া হবে বলে জানান তিনি।

সিলেট সিটি করপোরেশন সূত্রে জানা গেছে, মাজার এলাকা, আম্বরখানা থেকে বন্দর বাজার, জিন্দাবাজার থেকে চৌহাট্রা পর্যন্ত আবার চৌহাট্রা থেকে বাগবাড়ী এবং শাহজালাল উপশহরের কয়েকটি ব্লক এ প্রকল্পের আওতায় খুঁটি ও তারমুক্ত করার কাজ চলছে। সিলেট সিটি করপোরেশন ও বিদ্যুৎ বোর্ডের অর্থায়নে সিলেট নগরীকে ডিজিটাল স্মার্ট সিটি হিসেবে গড়ে তোলা হচ্ছে। এতে ব্যয় ধরা হয়েছে ৫৫ কোটি টাকা।

এদিকে কর্তৃপক্ষের এমন উদ্যোগে উচ্ছ্বসিত সিলেট শহরের বাসিন্দারা। এমনকি দরগাহ রোড দেখে চমকে উঠছেন পর্যটকরা। এক পর্যটক জানান, ‘দরগায় প্রবেশের সড়ক দেখে প্রথমে চমকে গিয়েছিলাম। ভাবছিলাম ভুল করে কোথাও এসে পড়লাম নাকি স্বপ্ন দেখছি। বিষয়টি বাংলাদেশের জন্য খুবই প্রশংসনীয় উদ্যোগ যে, শহরে বিদ্যুতের খুঁটি নেই, নেই তারের জঞ্জালও। তবু সড়ক বাতি জ্বলছে। আর বাতিও বেশ আলোকিত করে রেখেছে সবটা।’

সিলেটের পাশ্ববর্তী অঞ্চল থেকে আসা মোহসিন উদ্দিন বলেন, ‘ রাতে ফেসবুকে ছবি দেখে বিশ্বাস হয়নি। ভাবলাম ফটোশপ কিনা। তাই স্বচোখে দেখতে এলাম। আজ সন্ধ্যায় মাজার এলাকায় এসে মুগ্ধ হই। ডিজিটাল বাংলাদেশে গড়ার দিকে এগিয়ে গেল বাংলাদেশ। রাজধানী ঢাকাকে এমন তার ও খুঁটিহীন দেখতে চাই।

আরও পড়ুনঃ ৪ বার আত্মহত্যার চেষ্টা করেন এই অভিনেত্রী!

দেশ-বিদেশের টাটকা খবর আর অন্যান্য সংবাদপত্র পড়তে হলে cbna24.com 

সুন্দর সুন্দর ভিডিও দেখতে হলে প্লিজ আমাদের চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন

সংবাদটি শেয়ার করুন
cbna24-7th-anniversary

Leave a Reply

Your email address will not be published.

10 + seventeen =