কানাডার সংবাদ

করোনা ভাইরাসে বিপর্যস্ত কানাডা আরও ৩ জনের মৃত্যু

করোনা ভাইরাসে বিপর্যস্ত কানাডা আরও ৩ জনের মৃত্যু
আজ সোমবার দুপুরে জাতির উদ্দেশে বক্তব্য রাখছেন কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো

করোনা ভাইরাসে বিপর্যস্ত কানাডা আরও ৩ জনের মৃত্যু

করোনা ভাইরাসে বিপর্যস্ত কানাডা আরও ৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। প্রতি ঘন্টায় ঘন্টায় করোনা ভাইরাস আক্রান্তের সংখ্যা বেড়েই চলছে। এ রিপোট লেখা পর্যন্ত আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে ৪১৪ জন হয়েছে। আজ ব্রিটিশ কলম্বিয়া ৩জনের মৃত্য ঘটেছে এ নিয়ে চার জনের মৃত্য হলো কানাডাতে তবে ৪জনই ব্রিটিশ কলম্বিয়ার একই হাসপাতাল থেকে মৃত্যুবরণ করেছেন। রেস্টুরেন্টগুলোতেও একত্রে বসে না খাওয়ার জন্য বিভিন্ন পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। একান্ত প্রয়োজন না হলে ঘরে থাকার অনুরোধ করা হয়েছে। ক্যসিন্যু, বার, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধের পর এখন  চেইনকফিশপে বসে খাওয়া বন্ধ করে দেওয়া হচ্ছে। প্রতিটি রেস্টুরেন্টে অচিরেই ভিতরে বসে খাবার ব্যসস্থা বন্ধ করে দেওয়া হচ্ছে। সকল রেস্তোরাঁ ও কপিশপ টেকআউট ও ডেলিভারি ছাড়া খাবার পরিবেশনে থেকে বিরত থাকতে অনুরোধ করেছেন স্বাস্থ্যকর্তৃপক্ষ।

করোনাভাইরাস আতঙ্কে কাঁপছে বিশ্ব। এই মারণ ভাইরাস থেকে সুরক্ষায় প্রতিটি দেশই নিজেদের মতো করে ব্যবস্থা নিচ্ছে। কানাডা সরকারও নিজ দেশের নাগরিক বা স্থায়ী বাসিন্দা ছাড়া সব বিদেশিদের জন্য দেশটিতে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে।

 

কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো কিছুক্ষণ পূর্বে জাতির উদ্দেশে বক্তব্য রেখেছেন।

ট্রুডো কভিড-১৯ করোনা ভাইরাস প্রাদুর্ভাবের জন্য  বিদেশী ভ্রমণকারীদের জন্য কানাডার  সীমানা বন্ধ করে দিয়েছেন।

প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো আজ সোমবার জাতির উদ্দেশে বক্তব্য দিতে গিয়ে বলেছেন  কানাডার করোনভাইরাসকে সীমাবদ্ধ করতে বেশ কয়েকটি নতুন পদক্ষেপের কথা ঘোষণা করেছেন ।

অটোয়ার রিডাউ কটেজ থেকে সাংবাদিকদের সাথে কথা বলার সময় ট্রুডো বলেছেন যে কানাডা বোর্ডার বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে তবে  কানাডায় এমন লোকদের সীমানা বন্ধ করবে যেগুলি কানাডার নাগরিক নয়, বা কানাডার স্থায়ী বাসিন্দা নয়। ট্রুডো বলেছেন “কানাডিয়ান ভ্রমণকারীরা কানাডায় ফিরে আসার অপেক্ষার সময় তাদের দেশে ফিরে আসার ব্যয় বা অস্থায়ীভাবে তাদের প্রাথমিক চাহিদা মেটাতে আর্থিক সহায়তা পেতে সক্ষম হবেন,” ।

জাস্টিন ট্রুডো  বলেছেন, বিমান বাহিনী, কূটনীতিক, মিডিয়ার নিকটাত্মীয় পরিবারের সদস্য এবং মার্কিন নাগরিকদের জন্য ব্যতিক্রম হবে।

তিনি  বলেছেন, বিমান সংস্থাগুলি যে কোনো জনের ভাইরাসটির লক্ষণ দেখা যায় তাহলে  তাকে বিমানটিতে উঠতে নিষেধ করবে। এর অর্থ  যার ভাইরাসের লক্ষণ রয়েছে তিনি কানাডায় প্রবেশ করতে পারবেন না।

প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, ব্যবসা বাণিজ্য, ওষুধপত্র, এবং জরুরী পণ্য সরবরাহে নিয়োজিত আকাশ পরিবহনের ক্ষেত্রে এই সিদ্ধান্ত প্রযোজ্য হবে না। প্রধানমন্ত্রী বলেন, বুধবার থেকে কেবলমাত্র টরন্টো, মন্ট্রিয়ল,ভ্যাঙ্কুভার এবং ক্যালগেরি বিমান বন্দরে আন্তর্জাতিক ফ্লাইট উঠানামা করবে।

তিনি বলেছিলেন যে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, মেক্সিকো এবং ক্যারিবিয়ান থেকে অভ্যন্তরীণ বিমান এবং বিমানগুলি প্রভাবিত হবে না, এবং এই পদক্ষেপগুলি বাণিজ্য বা ব্যবসায়ের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য নয়। ‍তিনি বলেছেন  “আপনি বিদেশে থাকলে এখনই দেশে ফিরে আসার সময় হয়েছে,” । “আপনি যদি এখনই আসেন , আপনাকে অবশ্যই ১৪ দিনের জন্য নিজেকে বিচ্ছিন্ন রাখতে  হবে।” ব্যবসা বাণিজ্য, ওষুধপত্র, এবং জরুরী পণ্য সরবরাহের নিয়োজিত আকাশ পরিবহনের ক্ষেত্রে  এই সিদ্ধান্ত প্রযোজ্য হবে না।

তিনি কানাডায় বসবাসরত প্রতিটি নাগরিকের জন্য সরকার থেকে জীবন নির্বাহের জন্য প্রয়োজনীয় আর্থিক সহায়তা দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন।

অপরদিকে  কানাডা এবং আমেরিকাছাড়া বিদেশি নাগরিকদের কানাডায় ভ্রমনের নিষেধাজ্ঞা আরোপের প্রতিক্রিয়ায় আতংকিত না হতে নাগরিকদের পরামর্শ দিযেছেন ফেডারেল স্বাস্থ্যমন্ত্রী প্যাটি হাইডো। তিনি বলেছেন,নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্য বা খাদ্যসামগ্রী নিয়ে কানাডীয়ানদের চিন্তিত হ্ওয়ার কোনো কারন নেই। আমাদের পর্যাপ্ত মজুদ আছে। তাছাড়া পণ্যসরবরাহের নেট্ওয়ার্কও সচল এবং নির্বিঘ্ন রয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো জাতির উদ্দেশে ভাষন দেয়ার পর সিবিসি টেলিভিশনের সাথে আলোচনায় তিনি এই অঅহ্বান জানান। সিবিসি টেলিভিশন সরকারের সংশ্লিষ্ট মন্ত্রীদের নিয়ে সরকারের নতুন সিদ্ধান্তের বিভিন্ন দিক নিয়ে  আলোচনার আয়োজন করে।

ফেডারেল স্বাস্থ্যমন্ত্রী  কানাডীয়ানদের আতংকিত হয়ে অতিরিক্ত পণ্য না কেনার পরামর্শ দিয়ে বলেন, ব্যবসা বাণিজ্য এবং পণ্য পরিবহণে  সম্পৃক্ত  বিমান  চলাচলকে নিষেধাজ্ঞার বাইরে রাখা হয়েছে। তা ছাড়া আমেরিকা ,মেক্সিকোকেও এই নিষেধাজ্ঞার বাইরে রাখা হয়েছে।

তিনি বলেন, সড়ক পথে  কানাডা এবং  আমেরিকা  ও মেক্সিকোর মধ্যে ট্রাক চলাচল অব্যাহত আছে। কাজেই পণ্য সরবরাহে কোনো বিঘ্ন ঘটবে না।

তিনি বলেন, এই সপ্তাহেই আমেরিকা এবং  মেক্সিকো সরকারের সঙ্গে তাঁর টেলিফোনে আলোচনা  উত্তর আমেরিকায় সমন্বিত অ্ উদ্যোগের  মাধ্যমে খাদ্য সরবরাহ নির্বিঘ্ন রাখার  বিষয়ে আলোচনা হবে।

 

বিস্তারিত আসছে …

চোখ রাখুন, সঙ্গে থাকুন সিবিএনএ২৪ডটকম-এর সঙ্গে

 


 


cbna24-7th-anniversary
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.

1 × five =